করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবিলায় চলছে দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন। আর তার জেরে বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্র। সেইসব শিল্পক্ষেত্রের জন্য কয়েক লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক ত্রাণের প্যাকেজ আনতে চলেছে মোদী সরকার, এমনটাই সূত্রের খবর। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের অনিবার্য ফলস্বরূপ অর্থনীতিগতভাবে দুর্বল অংশের চাকরিগত ও আয়গত ক্ষয়ক্ষতি সামাল দিতে এর আগে মোদী সরকার ১ লক্ষ ৭০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেথছিল। সূত্রের খবর ঠিক হলে, এই নিয়ে  দ্বিতীয় অর্থনৈতিক প্যাকেজ ঘোষণা করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

ওই সূত্রের দাবি, উচ্চ-স্তরের মন্ত্রিসভার বৈঠকের পরই এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। জানা গিয়েছে, যে ধরণের শিল্পক্ষেত্রগুলি, সাধারণ মানুষের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সবচেয়ে সৃষ্টি করে, অর্থাৎ শ্রম-নির্ভর শিল্পক্ষেত্রেই এই সহায়তা করার কথা ভাবছে সরকার। ১৪ এপ্রিল শেষ হচ্ছে লকডাউন। তার আগে আগামী দুই-তিনদিনের মধ্যেই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চায় মোদী সরকার।  এর জন্য কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও অর্থ সচিব এবং অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সরকারকে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত থাকা শিল্পপতিদের একটি বৈঠক-ও হওয়ার কথা রয়েছে।

৯/১১ হামলাকেও ছাপিয়ে গেল করোনা, একদিনেই মৃত্যুপুরী নিউইয়র্ক

লকডাউন ভেঙে বিপাকে স্বয়ং রাহুল-প্রিয়ঙ্কা, সত্যিই কি তাই, দেখুন ভাইরাল ভিডিও

১৪ এপ্রিলের পর জোড়া কৌশলে চলবে করোনা-যুদ্ধ, জেনে নিন মোদী সরকারের পরিকল্পনা

প্রথম আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণার সময় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ বলেছিলেন, ত্রাণ প্যাকেজের মধ্যে রয়েছে দরিদ্রদের জন্য প্রত্যক্ষ নগদ সহায়তা, বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস, খাদ্যশস্য, ১০০ দিনের কাজের বেতন বৃদ্ধির মতো উদ্য়োগ। মধ্যবিত্তদের জন্যও এম্প্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড বা ইপিএফ অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলার নিয়ম শিথিল করা হয়। সেই সময় কোভিড-১৯ টাস্কফোর্সের শীর্ষস্থানীয় নেত্রী তথা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ বলেছিলেন, কেউ ক্ষুধার্ত যাতে না থাকে, সেটা দেখাটাই সরকারের অগ্রাধিকার।