লকডাউন চলছে রাজ্যে। করোনা আতঙ্কে এখন ঘরবন্দি হয়ে দিন কাটছে বেশির ভাগ মানুষেরই। এমনকী, ভবঘুরেদের জন্যও 'নাইট শেল্টার'-এর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অথচ হাসপাতাল চত্বরে যে শিশুকন্যাকে নিয়ে পড়ে রয়েছেন ভিনরাজ্যের এক মহিলা, সেদিকে নজর নেই প্রশাসনের। ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে উত্তর ২৪ পরগণার বারাসতে।

আরও পড়ুন: রাজ্যে আরও ১ করোনা আক্রান্তের মৃত্য়ু, ভয়ে কাঁপছে মহানগর

বারাসতের বনমালীপুর জেলা হাসপাতাল। সরকারি এই হাসপাতালে রোগীর অভাব নেই। রাতে হাসপাতালে চত্বরে একটি শেডের তলা থাকেন রোগীর পরিজনেরা। তাঁদের দাবি, তিন-চারদিন ধরে দুধের শিশুকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে আশ্রয় নিয়েছেন ভিনরাজ্যের এক ভবঘুরে মহিলা। ঠিকমতো খাবার জুটছে না, অসহায় অবস্থায় দিন কাটছে তাঁদের। কেউ কেউ আবার বলছেন, শিশুটি নাকি অসুস্থ। অমানবিক এই ঘটনা নাড়িয়ে দিয়েছে অনেকেই। কিন্তু আইনি জটিলতা ও পুলিশি হয়রানির ভয়ে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি কেউ। শেষপর্যন্ত রোগীর পরিজনেরাই হাসপাতালে চত্বরের পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেন বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু তাতেও কোনও লাভ হয়নি বলে অভিযোগ। 

আরও পড়ুন: আইডি-র চিকিৎসায় বড়সড় সাফল্য়, সুস্থ রাজ্যের প্রথম ৩ করোনা আক্রান্ত

আরও পড়ুন: লকডাউনে পেট ভরে খিচুড়ি, জনসেবায় কমিউনিটি কিচেন চালু যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে

এদিকে করোনা রুখতে ভিনরাজ্য থেকে ফিরলেই স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো বাধ্যতামূলকভাবে ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। বাড়িতে কমপক্ষে ১৮ দিনে আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বারাসতে সরকারি হাসপাতালে চত্বরে ভিন রাজ্যের ভবঘুরে মহিলাকে নিয়ে আতঙ্কিত সকলেই। তিনি করোনায় আক্রান্ত কিনা, তা পরীক্ষার করে দেখার দাবি উঠেছে। হাসপাতালে তরফে অবশ্য কোনও ইতিবাচক সাড়া মেলেনি।