রাজ্য়ের একদিকে যেমন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩  জনের মৃত্য়ু খবর এসেছে, আর তারই পাশাপাশি অপরদিকে ভাল খবরও এসেছে। সুস্থ রাজ্যের প্রথম ৩ করোনা আক্রান্ত। রাজ্যের প্রথম ৩ নোভেল করোনাভাইরাস আক্রান্তের শরীরে আর কোনও সংক্রমণ নেই।

আরও পড়ুন, করোনার উপসর্গ নিয়ে গতরাতে ভর্তি, রিপোর্ট আসার আগেই মহিলার মৃত্যু এনআরএসে

রাজ্য প্রথম  করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয় সরকারি আমলা পুত্র। এরপর দ্বিতীয় হল বালিগঞ্জে আক্রান্ত ব্যবসায়ী পুত্রের বাবা এবং তৃতীয় আক্রান্ত হাবরার বাসিন্দা স্কটল্যান্ড ফেরত ছাত্রী। এই ৩ জনেরই ফের পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। 'হু' অর্থাৎ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন ও স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বিধি অনুযায়ী, আক্রান্ত হওয়ার পর ১৪ দিন একেবারে সিঙ্গল কেবিনে আইসোলেশনে রেখে দেওয়া হয় এই ৩ জনকে। এরপর ফের তাঁদের নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। পরপর ২ বার সেই নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ হলে সংক্রমণমুক্ত বলে ধরে নেওয়া হয়। এরপর থাকে আরও কয়েকটি পদক্ষেপ।

আরও পড়ুন, জলাশয়ের জ্য়ান্ত মাছ এবার আসবে বাড়ি, লকডাউনে প্রতিশ্রুতি রাজ্য মৎস্য উন্নয়ন নিগমের

  পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের এক কর্তা  জানিয়েছেন, সংক্রমণ থেকে মুক্তি ঘটার পর এবার তাঁদেরকে আইসোলেশন ট্রেনিং থেকে বের করে আইসোলেশন ওয়ার্ডে আলাদাভাবে রাখা হবে। সেখানে আরও ১৪ দিন ধরে তাঁদের উপর ফের নজরদারি করা হবে।তাদের ব্যবহার করা সব জিনিসপত্র নষ্ট করে ফেলা হবে। ১৪ দিন পর ফের আরেকবার পরীক্ষা করা হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ হলেই মিলবে বাড়ি যাওয়ার অনুমতি। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এই তিনজনের ক্ষেত্রে এবার সেই পদক্ষেপগুলি কার্যকর করার জন্য ইতিমধ্য়েই উদ্যোগ নেওয়া শুরু হয়েছে।

জ্বর নিয়েই ট্রেন করে একটানা অফিস, ভয়ে কাঁটা রাজ্য়ের করোনা আক্রান্তর সহকর্মীরা

ফের তথ্য গোপন করোনা আক্রান্ত প্রৌঢ়ের ভাইয়ের, আইসোলেশনে ভর্তি বরানগরের বাসিন্দা

৪জনের বেশি ঢুকতে বাধা শ্মশানে, করোনা রুখতে নয়া বিধি পুরসভার