বিহারের গঙ্গায় ভাসমান প্রায় ১২টি অজ্ঞাত পরিচয় মৃতদের নিয়ে তৈরি হয়েছে রহস্য। করোনাভাইরাসের ওই মহামারিকালে মৃতদেরগুলি কার তাই নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। গত ৫-৭ দিন ধরে একই ছবি দেখা যাচ্ছে বিহারের বক্সার জেলায়। স্থানীয় এসডিও কেকে উপাধ্যায় জানিয়েছেন নদীতেগ দেহ ভাসিয়ে দেওয়ার প্রথা বিহারিদের মধ্যে নেই। তাই তাঁরা মৃতদেহগুলি তুলে সৎকার করার ব্যবস্থা করছেন। প্রতিটি ম-তদেহ সৎকারের জন্য ৫০০ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। পুরো বিষয়টি করোনাভাইরাস সংক্রান্ত প্রোটোকল মেনে করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। স্থানীয় প্রশাসন মনে করছে, গঙ্গার অন্যপ্রান্ত রয়েছে উত্তরপ্রদেশের বারানসী, ইলাহাবাদ। সেখান থেকে করোনা আক্রান্তদের মৃতদের ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছি কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। 


বিহার উত্তর প্রদেশসহ গোটা দেশেই করোনা পরিস্থিতি খুব খারাপ। যা নিয়ে উদ্বেগও বাড়়ছে প্রশাসনের। তারপর বিহারের বক্সার চৌসায় গঙ্গার তীরে দেখা দেল হাড়হিম করা দৃশ্য। একের পর এক মৃতদেহ দলে ভাসছে অথবা পড়ে রয়েছে তীরে। আর তাই ছিঁড়ে খাচ্ছে সারমেয় অথবা পাখিতে। সাতসকালে এই দৃশ্য দেখে অনেকেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাই তড়িঘড়ি মৃতদেহগুলি সৎকারের ব্যবস্থা করে স্থানীয় প্রশাসন। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, তাঁদের এলাকায় এক সঙ্গে এত মানুষের মৃত্যু হয়নি। দেহগুলি গঙ্গার অন্যপ্রান্তে উত্তর প্রদেশ থেকে এসেছিল। স্থানীয়দের দাবি সেখানেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতদের দেহ জলে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছে। 

'বিচারবিভাগীয় হস্তক্ষেপ'-এ না কেন্দ্রের, সুপ্রিম কোর্টে করোনা টিকা শুনানি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত স্থগিত...

মাউন্ট এভারেষ্টের শীর্ষে 'বিচ্ছেদ লাইন', করোনা সংক্রমণ রুখতে আজব খেয়াল চিনের ...

জনপ্রিয় টেলি অভিনেত্রীর মন্তব্যে সরগরম নেটদুনিয়া, কী এমন বললেন মুনমুন দত্ত ...

তবে এই ঘটনা খুবই মর্মান্তিক। তবে এই করোনাকালে গঙ্গা নদীতে মৃতদেহ ভাসছে- এই ঘটনায় গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। মৃতদেহগুলি যদি করোনা রোগীদের হয়ে থাকে তাহলে নদীর জল থেকে সংক্রমণ হতে পারে বলেও অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। একই সঙ্গে জল দুষিত হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে মৃতদেহগুলি নিয়ে ইতিমধ্যেই উত্তর প্রদেশ আর বিহারের মধ্যে চাপান উতোর শুরু হয়েছে। বিহারের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে উত্তর প্রদেশ প্রশাসন।