রবিবার দ্বিতীয়বারের জন্য কাপ আর ঠোঁটের ব্যবধানটা থেকে গিয়েছে নিউজিল্যান্ডের। আরও একবার ক্রিকেট বিশ্বকাপ জেতার খুব কাছাকাছি এসেও শেষ বাধাটা টপকাতে পারেনি। বস্তুত প্রথমে নির্ধারিত ১০০ ওভার ও পরে ২টি সুপার ওভার খেলা হয়েও দুই দলের মধ্যে ফারাক তৈরি হয়নি। তারপর ইনিংসে কে কটা চার মেরেছে তা গুণে জয়ী ঘোষণা করা হয়।

স্বাভাবিকভাবেই কিউই ক্রিকেটাররা প্রত্যেকেই অত্যন্ত হতাশ। ম্যাচের পর ব্ল্যাকক্যাপস অলরাউন্ডার জিমি নিশাম সমর্থকদের ধন্যবাদ দিয়েছএন, কিন্তু সেই সঙ্গে পরাজয়ের হতাশা থেকে বাচ্চাদের খেলাধূলো করতেই নিষেধ করলেন তিনি।

আরও পড়ুন - ফাইনালেও মস্ত বড় ভুল! আম্পায়ারিং ঠিক হলে আগেই হেরে যেত ইংল্যান্ড

আরও পড়ুন - ফাইনালে অনন্য রেকর্ড কিউই ক্যাপ্টেনের! পিছনে পড়লেন জয়বর্ধনে

আরো পড়ুন - এমন যেন আর না হয়, ভাগ্যকে দুষে বলছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক উইলিয়ামসন

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ ফাইনালে দুর্দান্ত বল করেন তিনি। ৭ ওভারে ৪৩ রান দিলেও প্রথমে অইন মর্গান ও পরে ৪৯ তম ওভারে পর পর প্লাঙ্কেট ও জোফ্রা আর্চারকে ফিরিয়ে দিয়ে নিউজিল্যান্ডকে ম্য়াচে ফিরিয়ে এনেছিলেন। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ব্যাট হাতে খুব একটা কিছু করতে না পারলেও পরে সুপার ওভারে দলকে তানোর দায়িত্ব তাঁকেই দিয়েছিলেন উইলিয়ামসন। ইংল্যান্ডের ১৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করে প্রথম ৫ বলে তিনি ১টি ছয়-সহ ১৪ রান তুলেছিলেন। শেষ বলে গাপ্টিল ১ রান নিয়ে স্কোর সমান করেন। তারপরেও হারতে হয়েছে।

এরপরই পর পর তিনটি টুইট করেছেন তিনি। প্রথম টুইটে তিনি ইংল্যান্ড দলকে কাপ জেতার জন্য অভিনন্দন জানান। পরের টুইটটিতে কিউই ক্রিকেটভক্তদের সমর্থনেরক জন্য ধন্যবাদ জানান। তার একটু পরেই রেকটি টুইট করে তিনি বলেন, 'শিশুরা খেলাধূলাকে পেশা হিসেবে নিও না। ব্যাঙ্কে কাজ কর, বা অন্য কিছু কর। ৬০ বছর বয়সে খুশি মনে মোটাসোটা হয়ে মরে যাও।'