শুক্রবার লর্ডসে পাকিস্তানের মরণ বাঁচন ম্যাচ। অবশ্য টসে হারলেই পাকিস্তানের বিশ্বকাপ ২০১৯-এর সেমিফাইনালে ওঠার আশা ফুরিয়ে যাবে। কিন্তু তারপরেও হাল ছাড়ছেন না সরফরাজরা। বলছেন আগে ব্যাট করে ৫০০ রান করবেন তাঁরা। আর তারপর বাংলাদেশকে ৫০ রানে অলআউট করে দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে তাঁদের।

এই মুহূর্তে পয়েন্ট তালিকায় ১১ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে রযেছে নিউজিল্যান্ড। পাকিস্তান এদিন জিততে পারলে তাদেরও পয়েন্ট ১১ হবে কিন্তু রানরেট অনেক পিছিয়ে আছে তারা। টসে জিতে বাংলাদেশ আগে ব্য়াট নিলেই পাকিস্তানের আশা শেষ। আগে ব্যাট করলেও ৩০০-এর বেশই রানের ব্যবধানে জিততে হবে। একদিনের ক্রিকেটে যা এখনও হয়নি।

তবে সরফরাজ বাহিনি এখনই হাল ছাড়ছে না। সুযোগ এলে একটা চেষ্টা তারা করবেনই - এমনটাই দাবি পাক অধিনায়কের। প্রাক ম্য়াচ সাংদাবিক সম্মেলনে তিনি বলেছেন, তাঁরা বাস্তববাদি। তবে  এটাও বিশ্বাস করেন ৪০০ থেকে ৫০০ রান তোলার ক্ষমতা রয়েছে তাঁদের। আর একবার তা করে ফেলকতে পারলে প্রকতিপক্ষকে ৫০ রানে অলআউটও করে দিতে পারে তাদের বোলাররা।

প্রশ্ন হল টসে জিতলে কি বাংলাদেশ, পাকিস্তানকে আগে ব্যাট করার সুযোগ দেবে? বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোডস কিন্তু তা আগেই জানাতে চাননি।

আরও পড়ুন - অঙ্ক কী কঠিন! কোন কোন অসম্ভব রাস্তায় পাকিস্তান সেমি-তে যেতে পারে

আরও পড়ুন - কোন ধোঁয়া টানেন! ফের কাদা ছেটানোর চেষ্টা করতেই বসিতকে ধুয়ে দিলেন ভাজ্জি

আরও পড়ুুন - ধোনিকে নকলের চেষ্টা, ফের হাসির খোরাক হলেন সরফরাজ - দেখুন ভিডিও

প্রাক্তন পাক ক্রিকেটাররা অবশ্য আর আশা দেখছেন না। রামিজ রাজা থেকে শোয়েব আখতার, সবারই বক্তব্য পাকিস্তানের সামনে লক্ষ্যটা প্রায় রাস্তা থেকে যে কাউকে অক্সিজেন ছাড়া মাউন্ট এভারেস্টে উঠতে বলার মতো। আর এই পরিস্তিতি নিজেরাই তৈরি করেছেন সরফরাজরা। রামিজের মতে প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে জঘন্য পরাজয়ের রানরেটের এই হাল হয়েছে। শোয়েব আখতার তো টুর্নামেন্টের পরে দলের খোল নলচে বদলে দেওয়ার কথা দাবি তুলেছেন। নতুন ব্যাটসম্যান, নতুন অলরাউন্ডার লাগবে বলে মনে করেন তিনি।

বিশ্বকাপের আগে কথা হচ্ছিল এইবার এক ইনিংসে ৫০০-এর বেশি রান উঠে যেতে পারে। বাজি ধরা হচ্ছিল ইংল্যান্ড দলের উপর। কিন্তু তারা এখনও ৪০০ রানই তুলতে পারেনি। এদিন কিন্তু পাকিস্তানের সামনে লক্ষ্য সেটাই। মুখের কথা কাজে কতটা করে দেখাতে পারেন, সেটাই দেখার।