ভারতের বিশ্বকাপ ২০১৯-এর দ্বিতীয় ম্যাচেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে দুরন্ত শতরান করে ফর্মে ফিরেছিলেন শিখর ধাওয়ান। প্রথম ম্য়াচে রোহিত, পরের ম্যাচে অপর ওপেনার শিখরও রান পাওয়ায় নিশ্চিন্ত ছিল ভারতীয় দল। কিন্তু অজিদের বিরুদ্ধে ওই ম্যাচই ভারতের জন্য দুঃসংবাদ বয়ে আনল। জানা গিয়েছে বুড়ো আঙুলের হাড় ভেঙেছে গব্বরের। ফলে অন্তত ৩-৪ সপ্তাহ তাঁকে মাঠের বাইরে থাকতে হবে।

গত ৩০ মে শুরু হয়েছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। চলবে ১৪ জুলাই পর্যন্ত। ফলে বিশ্বকাপেই আদৌ আর শিখর খেলতে পারবেন কি না তাই নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে। তিনি না খেলতে পারলে তাঁর জায়গায় দলে ঢোকার দৌড়ে রয়েছেন ঋষভ পন্থ ও আম্বাতি রায়ডু। তবে মুম্বই ব্যাটসম্যান তথা ভারত এ দলের অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার ভারত এ দলের  সফরের জন্য এখন ইংল্যান্ডেই রয়েছেন। আইপিএল-এও তাঁর পারফরম্যান্স ভাল ছিল। তাছাড়া তিনি চার নম্বরেই ব্যাট করেন। তাই তাঁকে দলে নিয়ে কেএল রাহুলকে ওপেনে তুলে নিয়ে আসার ভাবনাও রয়েছে।

জানা গিয়েছে অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে ব্য়াট করার সময় শুরুর দিকেই নাথান কুল্টার নাইলের একটি আচমকা লাফিয়ে ওটা বল শিখরের আঙুলে আঘাত করে। যন্ত্রনা নিয়েই তিনি বাকি সময় ব্য়াট করেন। ইনিংসের পরই তাঁরে নিয়ে যাওয়া হয় স্ক্যান করাতে। তিনি ওই ম্যাচে ফিল্ডিংও করেননি। তাঁর বদলে মাঠে ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। ভারতীয় দলের ফিজিও প্যাট্রিক ফারহার্ট ও অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা শিখরের আঘাত খতিয়ে দেখছেন।