১৯৪৭ সালে ম্যাকমোহন সাহেবের কলমের আঁচড়ে ভাগ হয়ে গিয়েছিল ভারতবর্ষ। জন্ম নিয়েছিল নতুন দেশ পাকিস্তানের। তারপর থেকে দুই দেশের মধ্যে দেখা গিয়েছে শুধুই বৈরিতা। সে কার্গিলের যুদ্ধক্ষেত্রে হোক কিংবা ক্রিকেটের ২২ গজে। কিন্তু, দেশভাগের ৭২ বছর পর আবার সেই ইংরেজরাই দুই দেশকে মিলিয়ে দিল। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে না হলেও অন্তত ক্রিকেট মাঠে তো বটেই।

ইঙ্গিতটা পাওয়া গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড নাম পাকিস্তান ম্যাচেই। প্রচুর পরিমাণে ভারতীয় সমর্থক এসেছিলেন সেই ম্যাচ দেখতে। পাকিস্তানি সমর্থকদের সঙ্গে ভারতীয় জার্সি পরেই পাকিস্তানের হয়ে গলা ফাটিয়েছিলেন তাঁরা। আর এইবার ভারত বনাম ইংল্য়ান্ড ম্যাচের আগে দুই দেশের ক্রিকেট ভক্তদের এই সম্প্রীতি আরও স্পষ্ট হয়ে গেল প্রাক্তন ইংরেজ অধিনায়ক নাসের হুসেনের এক টুইটের জবাবে।

আরও পড়ুন - পরোক্ষে কি সচিনকেই ঠুকলেন, ক্রিকেট মহলে এখন এটাই বিরাট প্রশ্ন

আরও পড়ুন - ৫৫ বছর পর ভারতীয় দল যাচ্ছে পাকিস্তানে - দেখে নিন খেলার দুনিয়ার টুকরো খবর

আরও পড়ুন - বিশ্বকাপে সম্প্রীতি! এই ভারতীয় সমর্থক গলা ফাটালেন পাকিস্তানের হয়ে

নাসের হুসেন পাক ক্রিকেট ভক্তদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রেখেছিলেন ভারত বনাম ইংল্যান্ড ম্যাচে পাকিস্তানি সমর্থকরা কাকে সমর্থন করবেন? সাধারণত অন্য প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ভারত বা পাকিস্তানের খেলা হলে দুই দেশের সমর্থকরাই প্রতিবেশী দেশকে ছেড়ে প্রতিপক্ষকেই সমর্থন করে থাকে। কিন্তু এইবার পাকিস্তান ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দেওয়ার পর ছবিটা পাল্টে গিয়েছে।  

নাসেরের প্রশ্নের উত্তরে একযোগে পাকিস্তানি সমর্থকরা জানিয়েছেন তাঁরা ভারতকেই সমর্থন করবেন। এই সমর্থনের পিছনে একেক জনের অবশ্য একেক রকম কারণ। কেই জানিয়েছেন ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানির বিরুদ্ধে তাঁরা প্রতিবেশীকে সমর্থন করবেন। আবার কেউ জানিয়েছেন সেমিফাইনাল বা ফাইনালে তাঁরা ভারতের বিরুদ্ধে খেলতে চান। আবার কেউ জানিয়েছেন ইংরেজ দলকে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দিতে ভারত-পাকিস্তান দুই দেশ জোট বাঁধবে। আবার কেউ উল্লেখ করেছেন আল্লামা ইকবাল লিখেছিলেন, 'সারে যাঁহা সে আচ্ছা হিন্দুস্তান হামারা', সেটাই তাঁর সমর্থনের কারণ।