দেশের হয়ে ৬১টি টেস্ট ম্যাচ খেলে পেয়েছেন ২৬১টি উইকেট। বোলিং গড় ৩৪.৭৯। ২০০০ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে সুযোগ পেয়েছিলেন মাত্র ১৮টি ওয়ান ডে ম্যাচে। তিনি পাকিস্তানের প্রাক্তন লেগ স্পিনার দানিশ কানেরিয়া। অনেক ক্রিকেট বিশেষজ্ঞই মনে করেন যোগ্যতা অনুযায়ী সুযোগ পাননি কানেরিয়া। পাকিস্তান দলে যথার্থ সুযোগ না পাওয়ার কারণ নিয়ে সম্প্রতি সরব হয়েছিলেন কানেরিয়া। বলেছিলেন হিন্দু হওয়ার কারণেই দলের অনেকেই বাজে ব্যবহার করত তার সঙ্গে, দলে সঠিক সুযোগও পেতেন না তিনি। এবার ফের সরব হলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন লেগ স্পিনার। এবার তার নিশানায় প্রাক্তন পাক অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদি। কানেরিয়ার অভিযোগ, আফ্রিদি সবসময় তার বিরোধিতা করতেন ও ওয়ান ডে ইন্টারন্যাশানালে তার কেরিয়ার বেশি দূর না এগোনোর কারণও আফ্রিদি।

আরও পড়ুনঃসচিনকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে পালটা চাপে যুবরাজ, প্রতিক্রিয়া 'মর গ্যায়ে'

আরও পড়ুনঃবুন্দেশলিগার অপর ম্যাচে সম্মানের লড়াইয়ে নামছে দুই দল

সম্প্রতি এক সংবাদ সংস্থাকে সাক্ষাৎকারে দানিশ কানেরিয়া জানিয়েছেন,'আফ্রিদি সব সময়েই আমার বিরোধিতা করেছে। আন্তর্জাতিক ওয়ান ডে ম্যাচ ও ঘরোয়া ক্রিকেটেও। একজন যদি সব সময়েই আপনার বিরুদ্ধাচারণ করে যেতে থাকে, তা হলে, ধর্ম ছাড়া আর কোন বিষয় সামনে আসতে পারে?আফ্রিদি ছাড়া আমি মইন খান, রশিদ লতিফ, ইনজ়ামাম উল হক, ইউনিস খানের নেতৃত্বেও খেলেছি। শেষ দু’জন আমাকে সাহায্য করেছেন। তবে ইনজ়ি ভাই, আমার সম্পর্কে সাধারণের কাছে প্রশংসা করতেন না।' এছাড়াও কানেরিয়া বলেন,'আমি বেশি ওয়ান ডে ম্যাচ খেলতে পারিনি আফ্রিদির জন্য। যখন আমরা ঘরোয়া ক্রিকেটে এক দলে খেলতাম, তখন আফ্রিদি ছিল অধিনায়ক। ও আমাকে বেশির ভাগ ম্যাচেই দলের বাইরে রাখত। আন্তর্জাতিক ওয়ান ডে ম্যাচেও তাই করেছে। অনেক সময়েই যার পিছনে কোনও কারণ খুঁজে পাইনি। আমার মতো আফ্রিদিও ছিল লেগস্পিনার। ওরা বলত, দু’জন স্পিনার এক দলে খেলার দরকার নেই।'

আরও পড়ুনঃ৬৯ দিন পর মাঠে নামছে বায়ার্ন মিউনিখ, লক্ষ্য লিগের শীর্ষস্থান ধরে রাখা

উল্লেখ্য, গত বছরেই কানেরিয়াকে সমর্থন করে প্রাক্তন পাক পেসার শোয়েব আখতার বলেছিলেন, ধর্মীয় কারণেই পাকিস্তান দলে অনেকে কানেরিয়ার সঙ্গে ভাল ভাবে ব্যবহার করতেন না। এবার ফের আফ্রিদি প্রসঙ্গে কানেরিয়ার এহেন মন্তব্য নতুন করে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। উমর আকমলের নাম গড়াপেটায় জড়ানোর পর থেকেই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সময়টা একেবারে ভল যাচ্ছে না। দল ও বোর্ডের দুর্নীতির বিরুদ্ধে একের পর এক মুখ খুলছেন প্রাক্তন তারকারা। এবার সেই তালিকায় নাম লেখালেন দানিশ কানেরিয়া। যদিও তার ইস্যু দুর্নীতি নয়, জাত-পাতের ভেদাভেদ। এই জল এবার কত দূর গড়ায় সেদিকেই নজর ক্রিকট  বিশেষজ্ঞদের।