বৃহস্পতিবার বিশ্বকাপ ২০১৯-এর সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে জেসন রয়কে জঘন্য় সিদ্ধান্তে আউট দিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা। সেই আউট নিয়ে সোশ্য়াল মিডিয়ায় ছিছিক্কার পড়ে গিয়ছে। কিন্তু তারপরেও তাঁর উপরেই আস্থা রাখল আইসিসি। অন্যদিকে ওইভাবে আউট হয়ে মাঠেই উষ্মা প্রকাশ করায়, শাস্তির কোপে পড়লেন জেসন রয়।

বৃহস্পতিবার ৮৫ রানে ব্যাট করছিলেন জেসন রয়। প্যাট কামিন্সের একটি লেগ সাইডের বলে তিনি ব্যাট চালালেও ব্যাটে-বলে সংযোগ হয়নি। পরিষ্কার ওয়াইড বল। কিন্তু, অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটারদের হাল্কা আবেদনের পরই ধর্মসেনা আউট দিয়ে দেন। পরে আল্ডট্রা এজ প্রযুক্তিও নিশ্চিতভাবে জানায় বল রয়ের ব্যাটে লাগেইনি।

আরও পড়ুন - দুই সেমিতে দুই বড় ভুল, শিকার ধোনি ও জেসন রয়! ক্ষোভের নিশানায় আইসিসি

আরো পড়ুন - দলে বিরাট-রোহিত গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব! কারোর তোয়াক্কা করেন না শাস্ত্রীরা

আরো পড়ুন - আম্পায়ারের সঙ্গে আউট নিয়ে তর্ক, জেসন রয়-এর ম্যাচ ফি-র ৩০ শতাংশ জরিমানা

জেসন রয় রিভিউ দাবি করেন। ধর্মেসেনা এখানে আরও একটি ভুল করেন। তিনি রিভিউ-এর সিগনাল দেন। কিন্তু, ইংল্যান্ড দল আগেই রিভিউটি নষ্ট করেছিল। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটাররা তা মনে করিয়ে দিলে অবশ্য শুধরে নেন।
এত বুল করার পরেও ফাইনাল ম্যাচে তাঁকেই আম্পায়ার হিসেবে বেছে নিল আইসিসি। তাঁর সঙ্গে ম্য়াচ পরিচালনার দায়িত্বে থাকবেন দক্ষিণ আফ্রিকান আম্পায়ার এরাসমুস। আর ম্।যাচ রেফারি আরেক শ্রীলঙ্কান রঞ্জন মদুগালে।

অন্যদিকে আউট সিদ্ধান্তে মাঠেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন জেসন রয়। বারবার দুইপাশে হাত ছড়িয়ে বলটি ওয়াইড ছিল এই ইঙ্গিত করেন। এমনকী তাঁকে শান্ত করতে এগিয়ে আসতে হয় লেগ আম্পায়ারকেও। এই আচরণের জন্য রয় বড় শাস্তি পেতে পারেন আশঙ্কা করা হয়েছিল। এমনকী ফাইনাল ম্যাচে নির্বাসিতও হতে পারতেন। কিন্তু আইসিসি তাঁর ম্য়াচ ফি-এর ৩০ শতাংশ জরিমানা করেছে। একই সঙ্গে তাঁকে দুটি ডিমেরিট পয়েন্টও দেওয়া হয়েছে।