ভারত-বাংলাদেশ প্রথম টি-২০ ম্যাচের অনেক আগে থেকেই ম্যাচ নিয়ে সংশয় তৈরি করেছিল দিল্লির বায়ু দূষণ। রবিবার খেলার দিন সকালে বৃষ্টি পরিস্থিতি আরও খারাপ করে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ে ম্যাচ শুরু হয়েছিল। খেলাও হয়েছিল। সবাই ভাবলেন এই যাত্রায় হাঁফ ছেড়ে বাঁচা গেল। কিন্তু সেই সময় এখনও আসেনি। কারণ ধোঁয়াশার আস্তরণ কাটিয়ে এবার ভারত বাংলাদেশে টি-২৯ সিরিজকে রক্তচক্ষু দেখাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় মাহা। মৌসম ভাবন জানিয়েছে, ম্যাচের দিনই গুজরাত উপকূলে আছড়ে পরবে মাহা। আরব সাগরে তৈরি হওয়া সেই ঘূর্ণি ঝড়ের দাপট সামলাতে তৈরি হচ্ছে প্রশাসান। 

আরও পড়ুন - ‘ধোনি হতে যেও না’ ঋষভকে টিপস প্রাক্তন বিশ্বসেরা উইকেটকিপারের

মৌসম ভাবন জানিয়েছে বৃহস্পতিবার সকালের দিকে পোরবন্দর ও দিউ এর মাঝামাঝি অংশ দিয়ে গুজরাত উপকূলে আছড়ে পরবে ঘূর্ণি ঝড় মাহা। আছড়ে পরার সময় এর গতিবেগ থাকবে ঘন্টায় ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার। সেদিনই ভারত বাংলাদেশ দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচ গুজরাতের রাজকোটে। একখন প্রশ্ন ঝড়ের কতটা প্রভাব পরবে রাজকোটে? রাজকোট থেকে গুজরাত উপকুলের দুরত্ব ২০০ কিলোমাটারের আশেপাশে। ঝড়ের সরাসরি দাপট সহ্য করতে না হলেও বৃষ্টির প্রকপ থেকে রেহাই পাওয়া যাবে বলে মনে হচ্ছে না। তাই দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচ নিয়েও আশঙ্কার মেঘটা তৈরি। ধোঁয়াশা কাটিয়ে দিল্লি ম্যাচ হয়েছে, এখন দেখার মাহা কাটিয়ে রাজকোটে খেলা হয় কি না।

আরও পড়ুন - জন্মদিনে নিজেকেই চিঠি লিখলেন বিরাট কোহলি, কী আছে সেই চিঠিতে

ম্যাচ না হলে চাপ বাড়বে ভারতীয় দলের ওপর কারণ দিল্লিতে রবিবার বাংলাদেশের কাছে প্রথমবার টি-২০ ম্যাচে ভারতে হয়েছে টিম ইন্ডিয়াকে। তিন ম্যাচের সিরিজে ভারত এখন পিছিয়ে। দ্বিতীয় ম্যাচটাই যদি পন্ড হয়ে যায় তাহলে শেষ ম্যাচে জয় ছাড়া আর কোনও রাস্তা খোলা নেই টিম ইন্ডিয়ার কাছে। আর সেই জয় দিয়েও সিরিজ জেতা যাবে না। সিরিজ ড্র করা যাবে। আর সেদিনও পা হড়কে গেলে প্রথমবার বাংলাদেশের কাছে সিরিজ হারবে ভারত। আর সেটাও হবে ঘরের মাঠে। তবে দল চাপ নিচ্ছে না। বরং খোস মেজাজেই আছেন সবাই। টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকেও বড়াতি কোনও চাপ দেওয়া হয়নি ক্রিকেটারদের ওপর। 

আরও পড়ুন - ডেভিস কাপের ম্যাচ ফসকালো পাকিস্তান, ভারতের দাবি মেনে সরছে ভেন্যু