ক্রিকেট মহলে আবারও শোকের ছায়া। ৫৮ তম জন্মদিনের ছয় দিন আগেই প্রয়াত হলেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন ওপেনার তথা জাতীয় নির্বাচক ভিপি চন্দ্রশেখর। স্ত্রী ও দুই কন্যাকে রেখেই চির নিদ্রায় মগ্ন হলেন এই ক্রিকেটার। শুরুতে সাধারনত হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই তাঁর মৃত্যু হয়েছে মনে করা হয়েছিল। তবে পুলিশি তদন্তে সামনে আসল অন্য রহস্য। পুলিশের প্রাথমিক সূত্রে খবর হৃদরোগ নয় আত্মহত্যার ফলেই মারা গেছেন চন্দ্রশেখর। 

বৃহস্পতিবার চেন্নাইয়ের মাইলাপোরে নিজের বাড়িতেই তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন ধরেই ক্রিকেট সম্পর্কীয় ব্যাবসায় লোকসান চলছিল তাঁর। বৃহস্পতিবার নিজের ঘরে যাওয়ার আগে পরিবারের সঙ্গে চায়ের আসরেও বসেছিলেন তিনি। তবে তার কিছুক্ষন পরেই ঘটে এই দুর্ঘটনা। দীর্ঘ সময় তাঁর কোনও সাড়া না পাওয়ায় শেষে দরজা ভেঙে  ঘরের ভিতরে প্রবেশ করেন তাঁর স্ত্রী। তখনই দেখতে পান চন্দ্রশেখরের ঝুলন্ত দেহ। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও কোনও লাভ হয়নি তাতে। তার আগেই মারা যান তিনি। এছাড়াও পুলিশ জানিয়েছেন, দীর্ঘ দিন অর্থের অভাবে চিন্তায় ছিলেন তিনি। অনেক লোন নেওয়ার ফলে ঋণগ্রস্তও ছিলেন। ফলে কিছুদিন আগেই ব্যাঙ্ক থেকে নোটিশ পেয়েছিলেন। তাই সেই চিন্তা সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিক ধারনা পুলিশের। তবে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু হয়ে গিয়েছে এই ঘটনার। 

 

তাঁর কেরিয়ারে মোট সাতটি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলছেন তিনি। প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলেছেন ৮১ টি এবং সংগ্রহ করেছেন মোট ৪৯৯৯ রান। তাঁর সর্বোচ্চ রান ২৩৭ অপরাজিত। তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লীগে ভিবি কাঞ্চি ভিরানস নামে একটি দলও রয়েছে তাঁর। এছাড়াও আইপিএলে প্রথম তিন বছর চেন্নাই সুপার কিংস-এর ম্যানেজার পদে ছিলেন তিনি। সঙ্গে আইপিএলের দল গঠনে ধোনিকে সাহায্যও করেছিলেন এই ক্রিকেট তারকা। তাই তাঁর এই রহস্য মৃত্যুতে শোকাহত গোটা ক্রিকেট মহল।