ভারতীয় ক্রিকেটে অন্যতম সেরা তারকা ছিলেন সবার প্রিয় যুবরাজ সিং। ভারতীয় ক্রিকেটে একা হাতে দায়িত্ব নিয়ে বার করেছেন অনেক ম্যাচ। ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম প্রধান কাণ্ডারি ছিলেন যুবি। তবে তাকেও একটি ম্যাচ না খেলেও ক্রিকেটকে বিদায় জানাতে হয়েছে মাঠের বাইরে থেকেই। নির্বাচক হোক বা টিম ম্যানেজমেন্ট কেউ দায়িত্ব সহকারে তাঁর নির্বাসনের সময় পাশে ছিলেন না এমনটাই ইঙ্গিত দিলেন যুবরাজ। একই সঙ্গে ভারতীয় নির্বাচকদের কঠিন ভাষায় সমলোচনাও করলেন ২০১১ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন, জন্মদিনে নিজেকেই চিঠি লিখলেন বিরাট কোহলি, কী আছে সেই চিঠিতে

নজিরবিহীন ভাবে তিনি কার্যত নালিশ জানিয়ে তিনি বলেন, 'ভারতীয় ক্রিকেটারদের দলে আরও সুযোগ দরকার ছিল। আমাদের মতন ক্রিকেটারদের আরও খেলা দরকার ছিল। তবে সেটা হয়নি। উপরন্ত যখন খেলার মতন অবস্থা ছিল না তখন আমাদের খেলতে বলতেন নির্বাচকরা। একই সঙ্গে তখন খেলতে না চাইলেও দল থেকে পুরোপুরি ভাবে ছেঁটে দেওয়ার ধমক দেওয়া হত। তবে সেটা সত্যিই আশাপ্রদ ছিল না। চোট থেকে শুরু করে বিভিন্ন জিনিসেও কোনও রকমের সহায়তা পাওয়া যায়নি।'

আরও পড়ুন, খেলোয়ার থেকে অভিনেত্রী, অনুষ্কার আগে বিরাটের লাভ লাইফে ছিল বিরাট লাইন

অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল এই মুহূর্তে বিশ্রামে। স্বইচ্ছায় বিশ্রামের কথা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে জানিয়েছেন তিনি। আর সেটা সব দিক থেকে মেনে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া বোর্ড। ম্যাক্সওয়েলের সেই উদাহরণ টেনে যুবি আরও বলেন, 'আমাদরে ভারতে এটার সুযোগ বা সুবিধা কোনওটাই নেই। আমরা কোনও দিন সেটা পাইনি। তবে যে কোনও বোর্ডের এই বিষয়টা বোঝা উচিত। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বোর্ড সভাপতি হয়েছেন। আশা করি প্রাক্তন ক্রিকেটার হিসাবে তিনি সব কিছু শুধরে দেবেন। আর সেটা ইতিমধ্যে হতে শুরু করে দিয়েছে। একজন ক্রিকেটার বুঝবে কি ভাবে কি হলে ক্রিকেটারদের সুবিধা হবে।'

আরও পড়ুন, কোহলির জন্মদিনে ‘বিরাট’ শুভেচ্ছা বার্তা সচিন-শেহওয়াগদের


একই সঙ্গে মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর ও তাঁর খেলা প্রসঙ্গে প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার যুবরাজ বলেন, 'এই সব বিষয়ে আমি কি করে কথা বলি। ধোনির সঙ্গে কথা বলবেন মহান নির্বাচকরা। এখানে আমাদের কিছু বলা ঠিক হবে না। এখানে আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারি না। এটা আমাদের হাতের বাইরে।'