অন্যান্য কোচের তুলনায় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির যে গ্যারি কার্স্টেনের সঙ্গে যে রসায়ন অন্যরকম ছিল সে কথা সকলেরই জানা। ধোনি যে তার কথা শুনে চলত সে কথা আগে বহুবার জানিয়েছেন কার্স্টেন। কোনওবিষয় নিয়ে সাময়িক মত পার্থক্য হলেও, তা আলোচনা করে মিটিয়ে নিতেন স্বয়ং ধোনি। গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক যে মধুর ছিল সে কথা বলাই চলে। ধোনির কোচের প্রতি আনুগত্য দেখে মুগ্ধও হয়েছিলেন প্রাক্তন প্রোটিয়া ওপেনার। কোচের প্রতি ধোনির কতটা ভক্তি ও শ্রদ্ধা ছিল সেরমকই একটি ঘটনার কথা জানালেন ভারতেপ হয়ে বিশ্বকাপ জয়ী কোচ।

আরও পড়ুনঃপ্রকাশ্যে বিসিসিআইয়ের আইপিএল ব্লু প্রিন্ট, সম্ভবত আরবেই বসছে কোটিপতি লিগের আসর

২০১১ বিশ্বকাপের ঠিক আগে বেঙ্গালুরুতে ছিল গোটা ভারতীয় দল। সেই সময় সেখানকার একটি ফ্লাইট স্কুলে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেট দলকে। কিন্তু নিরাপত্তার কারণে সেখানে বিদেশিদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ ছিল। সেই কারণে কার্স্টেন সহ দুই সাপোর্ট স্টাফের অনুমতি ছিলনা। সেই ঘটনা প্রসঙ্গে কার্স্টেন বলছেন,'অনুষ্ঠানের দিন সকালে জানানো হয়, আপটন, সিমন্স ও আমাকে নিরাপত্তার কারণে অনুষ্ঠানে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হবে না। এদিকে গোটা দল তো অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি হচ্ছিল। ধোনি তা জানার পরেই সেই অনুষ্ঠানে যাওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করে দেন। ধোনি সব শুনে বলেছিল, সবাইকে যদি অনুষ্ঠানে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া না হয়, তা হলে আমরা কেউই যাব না।'

আরও পড়ুনঃপ্রকাশিত হল কাতার বিশ্বকাপের সূচি, ২০২২-এর নভেম্বরে শুরু হবে ফুটবল মহাযজ্ঞ

আরও পড়ুনঃবলিউড গানে নেচে সকলকে মাত করল ওয়ার্নারের দুই মেয়ে

গ্যারি এও জানিয়েছেন দলের সবাই কথাই সমান ভাবে ভাবতেন ধোনি। কোচের প্রতি ধোনির অগাধ আস্থার কথাও বলেছেন প্রাক্তন প্রোটিয়া কোচ। সেই কারণেই অনেক কঠিন সময় কাটিয়ে উঠতে পেরেছিলাম বলেও জানিয়েছেন গ্যারি। তার মতে,'আমার প্রতি অনুগত ছিল ধোনি। সব সময়ে আমরা যে ম্যাচ জিততে পেরেছিলাম তা নয়, কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়েও যেতে হয়েছিল দলকে। কীভাবে টিমকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, সেই সম্পর্কে দীর্ঘ সময় আলোচনা করেছি ধোনি ও আমি। আমাদের সম্পর্ক খুবই ভাল ছিল। সেই কারণেই দেশের মাটিতে বিশ্বকাপের সময়ে ধোনির দল হয়ে উঠেছিল ‘টিম ইন্ডিয়া। শেষ হাসি হেসেছিলাম আমরাই।' এই প্রথম নয়, এর আগেও একাধিকবার ধোনির প্রশংসায় মুখর হয়েছে গ্যারি কার্স্টেন। তার দেখা বিশ্বের অন্যতম সেরা অধিনায়কদের তালিকাতেও মাহিকে রেখেছে গ্যারি।