তিনি পাকিস্তান ক্রিকেটের ব্যাড বয় হিসেবে পরিচিত। তবে কোনও দিনও পাক ক্রিকেটের সব থেকে অন্ধকার দিক, ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গে তাঁর নাম জড়ায়নি। তবুও সোজাসাপ্টা আবার কখনও আলপটকা মন্তব্য করে পাক ক্রিকেট মহলের কাছে ভিলেন হয়েছেন শোয়েব। এবার সেই রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস বোমা ফাটালেন ম্যাচ ফিক্সিং নিয়ে। পাকিস্তানের একটি অনুষ্ঠানে শোয়েবের মন্তব্য, ১১ নয় ২১ জন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মাঠে নামতেন তিনি।  ১১ জন প্রতিপক্ষের, ১০ জন নিজের দলের। শোয়েবের এই উক্তির পর আবার বিতর্কের ঝড় উঠেছে পাক ক্রিকেটে।

আরও পড়ুন - ভগবান ধোনির অটোগ্রাফ ভক্তের বাইকে, ভাইরাল হল ভিডিও

একটি টক শোয়ে শোয়েব বলেছেন, ‘ যখন মাঠে নামতাম ২১ জনের বিরুদ্ধে খেলতে হত। ১১ জন প্রতিপক্ষ দলের আর ১০ জন নিজের দলের। কারণ বুঝতেই পারতাম না কে ম্যাচ ফিক্সিং করছে। তখন ম্যাচ ফিক্সিংয়ের রমরমা বাজার। ফিক্সাররা আমাদের ঘিড়ে থাকত। একবার আফিস আমাকে বলেছিল কোন কোন ম্যাচে ও গড়াপেটা করেছে এবং কী ভাবে করেছে।’ শোয়েবের এমন কথা শুনে চমক উঠেছে ক্রিকেট বিশ্ব। এর আগে পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনাক শাহিদ আফ্রিদিও বলেছিলেন,তাঁর কাছে ২০১০ সালে হওয়া ফিক্সিংয়েকর খবর এসেছিল, কিন্তু কোচ ওয়াকির ইউনিস সেই কথাকে আমলাই দেননি। 

আরও পড়ুন - দিন রাতের টেস্টের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ, চিমটি কাটা মন্তব্য বাংলা কোচের

২০১১ সালে স্পট ফিক্সিং করে ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত হয়েছিলেন দুই পাক পেসার মহম্মদ আমের, মহম্মদ আসিফ ও ওপেনার সালমন বট। আসিফ ও আমির তখন স্বপ্নের ছন্দে। আর কেরিয়ারের দুরন্ত সময়ে থাকা দুই পেসার কেন ম্যাচ গড়াপেটার জড়িয়ে পরলেন সেটা বুঝে উঠতে পারেননি, বলছেন শোয়েব। এই দুই তারাকার স্পট ফিক্সিংয়ের খবর সামনে আসতেই রাগে নাকি বাড়ির দেওয়ালে ঘুসি মেরেছিলেন তিনি। টক শোতে বলছেন শোয়েব আখতার। স্টপ ফিক্সিং কান্ডে জড়িয়ে কেরিয়ার শেষ হয়ে গেছে মহম্ম আসিফের। আমির ফিরে এসেছেন। তবে শুধু সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলেন তিনি। তবে এত কিছুর মধ্যেও ফিক্সাররা তাঁকে কোনও দিনও এই অন্ধকার দিকে টেনে আনতে পারেনি। এটাই যেন তৃপ্তি দেয় রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসকে।

আরও পড়ুন - পিঙ্ক বলে সব থেকে সফল ভারতীয় ব্যাটসম্যান, ‘গোলাপী’ রহস্য ফাঁস করলেন পূজারা