দেশের হয়ে খেলছেন ১০৩টি টেস্ট, ২৩৬ টি ওয়ান ডে ও ২৮টি টি-টোয়েন্টি। তার ভেলকি শিকার টেস্টে ৪১৭টি, ওডিআইতে ২৬৯টি ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ২৫টি। সব ধরনের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ধরলে তার ঝুলিতে রয়েছে ২৩৫টি উইকেট। দেশ  তথা বিশ্বের সর্বকালের সেরা অফ স্পিনার মধ্যে যে হরভজন সিং অন্যতম তা নিয়েও কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু দীর্ঘ বছর ধরে তিনি ভারতীয় দলের বাইরে। তার অবসর নিয়েও উঠেছে নানা জল্পনা। বয়স ৪০ পেরোলেও এখনও নিজের দক্ষতার উপর আত্মবিশ্বাসী টার্বুনেটর। অবসরের জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে বললেন, প্রয়োজনে এখনে দেশের যুব ও সেরা প্রতিভাদের সঙ্গে স্কিলের লড়াইয়ে নামতে প্রস্তুত তিনি। 

আরও পড়ুনঃমন্দার বাজারে ৪ হাজার ৮০০ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বিসিসিআইকে

আইপিএলে প্রথম ১০ বছর কেলেছেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে। এখন তিনি চেন্নাই সুপার কিংসের সদস্য। আইপিএল কেরিয়ারে ১৬০ ম্যাচে ১৫০টি উইকেট পেয়েছেন ভাজ্জি। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেট খেলতে দেখা যায় না হরভজনকে। ক্রিকেটের প্রতি তার এখনও কতটা খিদে তা বোঝাতে গিয়ে ভাজ্জি বেছেন,'জাতীয় দলের হয়ে প্রায় ৮০০ দিন খেলেছি। আমি অনেক সাফল্য পেয়েছি। কারও দয়া চাই না। যদি ফিল্ডিংয়ের সময় পায়ের ফাঁক দিয়ে বা হাঁটুর পাশ দিয়ে বল বেরিয়ে যায়, তবে বয়সের কথা উঠতে পারে। বলা যেতেই পারে যে, আগের মতো ক্ষিপ্রতা দেখা যাচ্ছে না। আপনারা যদি দেশের সেরা তরুণদের বিরুদ্ধে আমাকে স্কিলের পরীক্ষায় নামাতে চান, কোনও অসুবিধা নেই। আমি লড়তে রাজি।'

আরও পড়ুনঃএমন কোন ঘটনা পাল্টে দিয়েছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায়ের গোটা জীবন

আরও পড়ুনঃঅনেক দিন পর মন খুলে হাসছেন ধোনি, ভিডিও ভাইরাল নেট দুনিয়ায়, হাসির কারণটা কী

ঘরোয়া ক্রিকেট না খেলা ও বর্তমানে নিজের অনুশীলন নিয়ে হরভজন বলেছেন,'এই বিষয়টা প্রত্যেকের ক্ষেত্রে আলাদা। কেউ যদি মনে করে যে সরাসরি ম্যাচে খেলা দরকার, তবে তার ক্ষেত্রে সেটাই ঠিক। আমি যদি নেটে ২০০০টা বল করি এক মাসে, তবে সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্রিকেটের অনুশীলন হয়েই যায়। আমার ক্ষেত্রে সেটাই যথেষ্ট।' এই বছর আইপিএলই কি তার শেষ আইপিএল?এই প্রশ্নের উত্তরে ভাজ্জি বলেছেন,'সেটা এখনই বলতে পারছি না। আমার শরীর কেমন থাকে, তার উপর এটা নির্ভর করছে। চার মাস ধরে ওয়ার্কআউট, বিশ্রাম, যোগা সেশনের পর নিজেকে পুনরুজ্জীবিত লাগছে। যেমনটা ২০১৩ সালে লেগেছিল। সে বার আইপিএলে ২৪ উইকেট নিয়েছিলাম।' ফলে হরভজন সিংয়ের কথা থেকে এটুকু পরিষ্কার য়ে কোনওভাবেই অবসর নিয়ে ভাবছেন না তিনি। আইপিএলের নিজেকে ১০০ শতাংশ ফিট রাখা ও আইপিএল ভাল পারফরমেন্স করাই তার লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন টার্বুনেটার।