ভারতীয় দলের বিরুদ্ধে মাঠে বল হাতে আগুন ঝড়াতে বরাবরই ভাল বাসতেন শোয়েব আখতার। সেই লড়াইয়ে কখনও ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা জিতেছেন, কখনও আবার জিতেছেন রাওয়াল পিন্ডি এক্সপ্রেস। ভারতীয় দলের বিরুদ্ধে নিজের সেরাটা উজারও করে দিতে চাইতেন শোয়েব। বারবার সংবাদ মাধ্যমে সেই কথাও বলেছেন শোয়েব আখতার। মাঠের ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের তার পেস শাসন করতে চাইলেও, মাঠের বাইকে বেশ কিছু ভারতীয় ক্রিকেটারদের সঙ্গে ছিল তার অভিন্ন হৃদয় বন্ধুত্ব। বন্ধুর প্রতি ভালবাসা উজার করে দিতে গিয়েও কীভাবে তাদের হয়রানি করতেন সেই কথাও জানালেন শোয়েব আখতার।

আরও পড়ুনঃদুর্দান্ত শুরু করেও আন্তর্জাতির ক্রিকেট থেকে হারিয়ে গেলেন যে ক্রিকেটাররা

খেলার ফাঁকে অনুশীলনের সময় হরভজন সিং এবং যুবরাজের সঙ্গে কুস্তি লড়তেন রাওয়ালপিণ্ডি এক্সপ্রেস। সে কথা আগেও শোনা গিয়েছে তাঁর মুখে। এবার জানালেন, তাঁর সঙ্গে কুস্তি লড়তে গিয়ে রীতিমতো হিমশিম খেতেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। এমনকী চোট পেয়েছেন। শোয়েব আখতার জানিয়েছেন,'আমি কুস্তি লড়তাম না। ওটা আসলে ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ। তবে নিজের সীমাটা পেরিয়ে যেতাম। কাউকে ভাল লাগলে তাকে ছুঁড়ে দিতে দারুণ লাগে। আর ঠিক সেভাবেই যুবরাজকে একবার ছুড়ে ফেলেছিলাম। আর বেকায়দার পরে গিয়ে  পিছন ভেঙে গিয়েছিল যুবরাজের।' 

আরও পড়ুনঃএখনই হার্দিক পান্ডিয়ার ছেলের কেরিয়ার ঠিক করে দিলেন কেএল রাহুল

আরও পড়ুনঃপ্যারা-অ্যাথলিটদের লড়াকু মনোভাবকে বিশেষ সম্মান জানাল টাটা স্ট্রাক্চুরা, লঞ্চ হল বিশেষ মিউজিক ভিডিও

এছাড়াও শোয়েব আখতার জানিয়েছেন, শুধু ভারতীয় ক্রিকেটাররাই নয়। পাকিস্তান ক্রিকেটারদের সঙ্গেও এমন ব্যবহার করতেন। এককালে শাহিদ আফ্রিদির পাঁজরের হাড়ও ভেঙে দিয়েছিলেন তিনি। সতীর্থ আব্দুল রজ্জাকও কুস্তি লড়তে গিয়ে হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন। ঠাট্টা করে শোয়েব বলেন, “ক্রিকেটারদের প্রতি আমার ভালবাসাটা একটু অন্যরকম। অল্প বয়সে এসব করে ফেলতাম। শরীরে যে এতটা শক্তি রয়েছে, কখনও ভাবিইনি।”এই ঘটনায় শোয়েবের মুখে শোনার পর অবাকই হয়েছেন অনেকে। ভালবাসা প্রকাশের এমন ধরন নিয়ে উঠেছে প্রশ্নও। এমন ভালবাসা প্রকাশের ধরনের ফলে অপরজনের কেরিয়ারও নষ্ট হয়ে যেতে পারে।