করোনাবা লকডাউন পরবর্তী সময় ক্রিকেটে কী কী নিয়মের বদল আসতে পারে তানি বেশ কয়েক দিন ধরেই টানাপোড়েন চলছে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আইসিসি ক্রিকেট কমিটিও গঠন করে। যার নেতৃত্বে ছিলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক অনিল কুম্বলে।  করোনা মহামারির অন্তর্বর্তীকালীন নিয়ম হিসেবে কুম্বলে কমিটি আইসিসিকে বল পালিশে থুতুর ব্যাবহার বন্ধ করা, টেস্ট ম্যাচে একজন পরিবর্ত রাখা, ও স্থানীয় আম্পায়ার দিয়ে ম্যাচ করানোর পরামর্শ দেয়। রিপোর্ট বিচার বিশ্লেষণ করে কুম্বলে কমিটির রিপোর্টে সিলমোহর দিল আইসিসি। যে নয়া নিয়মগুলি ইঅন্তবর্তীকালীনভাবে ক্রিকেটে লাগু হতে চলেছে সেগুলি হল,

আরও পড়ুনঃকীভাবে দলে সুযোগ পেয়েছিলেন ধোনি, রহস্যফাঁস করলেন প্রাক্তন জাতীয় নির্বাচক

আরও পড়ুনঃঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ড পৌছল ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল

বল পালিশে থুতুর ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা
বল পালিশ করার জন্য প্লেয়াররা লালা ব্যবহার করতে পারবে না। যদি কোনও প্লেয়ার লালার ব্যবহার করে ফেলে তাহলে প্রথমে সেই প্লেয়ার ও দলকে বোজানোর চেষ্টা করবেন আম্পায়ার। তবে খেলা শুরু করার আগে বলটি পুনরায় পরিষ্কার করে খেলা শুরু করতে হবে। কিন্তু তারপরে ফের যদি লালার ব্যবহার করা হয় আম্পায়ার ফিল্ডিং দলকে সতর্ক করবে। তবুও যদি বন্ধ না হয়,ব্যাটিং দলের পক্ষে পাঁচ রানের জরিমানা করা হবে। যখনই বলে লালা প্রয়োগ করা হবে আম্পায়ারদের বল পরিষ্কার করতে হবে।

করোনা  রিপ্লেসমেন্ট
টেস্ট ম্যাচ চলাকালীন যদি কোনও  দলের প্লেয়ারদের করোনা সংক্রমণের লক্ষ্মণ দেখা যায়, তাকে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে হবে। তার পরিবর্তে একজন প্লেয়ারকে পরিবর্ত হিসেবে নামাতে পারবে সেই দল। এক্ষেত্রে ম্যাচ রেফারি পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে রিপ্লেসমেন্টের অনুমতি দেবেন। এই নিয়মকে কোভিড ১৯ রিপ্লেসমেন্ট নাম দেওয়া হয়েছে।

নিরেপক্ষ আম্পায়ার থাকবে না
বেশিরভাগ দেশের আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল এখনও স্বাভাবিক না হওয়ায়,অন্য়ান্য দেশের নিরেপক্ষ আম্পায়ারদের বদলে স্থানীয় আম্পায়ারদের দিয়ে ম্য়াচ পরিচালনা করা হবে। সেক্ষেত্রে সবসময় আইসিসি এলিট প্যানেল ও আইসিসি ইন্টারন্যাসানাল প্যানেলের আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি সহ অন্যান্য আধিকারিকদের পাওয়া যাবে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দায়িত্ব সামলাবেন স্থানীয়রা।

অতিরিক্ত ডিআরএস সিস্টেম
আইসিসির ক্রিকেট কমিটি প্রতিটি ম্যাচে অতিরিক্ত ডিআরএস সিস্টেমেরও ব্যবস্থা করেছে। কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই যেহেতু স্থানীয় আম্পায়রা ম্যাচ পরিচালনা করবেন, সেক্ষেত্রে ভুল-ভ্রান্তি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকবে। তার জন্য প্রতিটি টেস্ট ম্যাচের প্রতি ইনিংসের জন্য ৩টি ও প্রতিটি একদিনের ম্যাচের জন্য ২টি করে অতিরিক্ত ডিআরএস পদ্ধতি প্রতি দল পাবে।

অতিরিক্ত লোগো অনুমোদিত
এদিকে, আইসিসি পরবর্তী ১২ মাসের জন্য দলের পোশাক ও লোগোগুলিতে নিয়ম শিথিল করার অনুমোদন দিয়েছে। একটি লোগো, ৩২ বর্গ ইঞ্চির চেয়ে বেশি আকারের নয়, নিয়ম অনুসারে অনুমোদিত আরও তিনটি লোগো ছাড়াও টেস্ট ম্যাচের শার্ট এবং সোয়েটারের বুকে রাখা যেতে পারে। এখনওপর্যন্ত, বুকে লোগোগুলি কেবল ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টিতে অনুমোদিত।

 

 

আরও পড়ুনঃ১১ জুন ফিরছে লা-লিগা,চিনে নিন লিগের ইতিহাসে ১১ জন সর্বোচ্চ গোলদাতাকে