দানিশ কানেরিয়া বিতর্কে এবার মুখ খুললেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক ইনজামাম উল হক। তাঁর পাল্টা দাবি, হিন্দু বলে কানেরিয়ার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হতো, অধিনায়ক থাকাকালীন এমন একটিও ঘটনা তাঁর চোখে পড়েনি। শুধু তাই নয়, ধর্ম যে কখনওই খেলার মাঠ বা বাইরে খেলোয়াড়দের মধ্যের সম্পর্কে দেওয়াল তৈরি করে না, তা বোঝাতে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের উদাহরণ দিয়েছেন ইনজামাম। পুরনো স্মৃতি হাতড়ে তাঁর দাবি, কলকাতায় এসে সৌরভের পাঠানো খাবার খেতেন তিনি। 

পাকিস্তানের হয়ে কানেরিয়া যতদিন খেলেছেন, তার অধিকাংশ সময়ই অধিনায়ক ছিলেন ইনজামাম। সেকথা মনে করিয়ে দিয়ে ইনজামাম নিজের ইউটিউব চ্যানেলে বলেন, 'যে অধিনায়কের অধীনে দানিশ খেলেছে, সেটা হল আমি। মুসলিম না হওয়ার জন্য ওঁর সঙ্গে কেউ খারাপ ব্যবহার করত, এমন একটিও ঘটনা আমি মনে করতে পারছি না।' 

আরও পড়ুন- গদ্দারদেরই স্বাগত জানানো হয় পাকিস্তান দলে, ফের তোপ দাগলেন কানেরিয়া

আরও পড়ুন- পাক ক্রিকেট দলে হিন্দু বলে হেনস্থার শিকার দানেশ, বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি শোয়েব আখতারের

ইনজামাম আরও দাবি করেন, দেশের ভবিষ্যৎ মনে করায় অনেক ক্ষেত্রেই সাকলিন মুস্তাকের বদলে কানেরিয়াকে খেলানোর কথা ভাবা হতো। প্রাক্তন পাক ব্যাটসম্যান দাবি করেছেন, পাকিস্তানিরা খুবই উদার মনের হন। ধর্ম যে পাক দলের মধ্যে ভেদাভেদ তৈরি করেনি, তা বোঝাতে আর এক প্রাক্তন তারকা মহম্মদ ইউসুফের উদাহরণ দিয়েছেন ইনজামাম। তিনি বলেন, 'ইউসুফ প্রথমে মুসলিম ছিল না। কিন্তু আল্লার আশীর্বাদে ও মুসলিম হয়ে মহম্মদ ইউসুফ নাম নেয়। যতদিন ও ইউসুফ ইউহানা ছিল, তার আগে বা পরে ওর সঙ্গে কোনও বৈষম্য করা হয়নি। যদি তা করাই হতো, তাহলে তো ও নিশ্চয়ই ধর্ম বদলের কথা ভাবত না।'
ইনজামাম মনে করিয়ে দেন, ২০০৪ সালে ভারত যখন ১৫ বছর পরে পাকিস্তানে খেলতে গিয়েছিল, তখন কীভাবে পাকিস্তানিরা ভারতীয় ক্রিকেটারদের স্বাগত জানিয়েছিল। আবার একবছর পরে ভারত সফরে এসেও তাঁরা একই ধরনের উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছিলেন বলে স্বীকার করেন ইনজামাম। 

এই প্রসঙ্গেই ২০০৫ সালের একটি ঘটনার কথা বলেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক। তিনি বলেন, '২০০৫ সালে ভারত সফরের আগে একটি বিজ্ঞাপনের শ্যুটিং- এ আমি কলকাতায় গিয়েছিলাম। ওই শ্যুটে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও ছিল। সেই সময় কলকাতায় সৌরভ একটি রেস্তোরাঁ খুলেছিল। আমি এবং সচিন সেটির উদ্বোধন করেছিলাম। সৌরভ ওর রেস্তোরাঁ থেকে আমায় খাবার পাঠাত, আমি তা খেতামও।'

ধর্ম যে কখনওই ক্রিকেটারদের মধ্যে ভেদাভেদ তৈরি করে না, তা বোঝাতে শারজার উদাহরণও দেন ইনজামাম। তিনি জানান, শারজায় ভারত- পাক খেলা হওয়ার সময় দুই দলই এক হোটেলে থাকত। তখন দুই দলের অনেক ক্রিকেটারই পরস্পরের ঘরে গিয়ে আড্ডায় মেতে উঠতেন বলে দাবি ইনজামামের। একসঙ্গে খাওয়াদাওয়াও করতেন তাঁরা। ফলে হিন্দু হওয়ার জন্য কানেরিয়ার সঙ্গে পাকিস্তানের অন্য ক্রিকেটাররা বসে খেতে চাইতেন না হলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা ঠিক নয় বলেই দাবি প্রাক্তন পাক অধিনায়কের।