লাদাখের গালোয়ান উপত্যকায় চিনা হামলায় ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হওয়ার পর থেকে দেশ জুড়ে চিন বিরোধী আবহ। উঠেছে চিনা দ্রব্য বর্জনের ডাকও। আইপিএল থেকে চিনা স্পনসর বাতিলের দাবি আগেই উঠেছিল। শুধু দাবিই নয়, আইপিএলে চিনা স্পনসর বাতিলের দাবিতে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের উপর চাপ সৃষ্টি  করেছে বণিক সভাও। চিনা স্পনসর বাদ না দিলে, ভবিষ্যতে কোনও ভারতীয় কোম্পানি বোর্ডকে স্পনসর করবে না বলে হুঁশিয়ারীও দেওয়া হয়েছিল বণিক সভার পক্ষ থেকে। যা নিয়ে অস্বস্তি বাড়ছিল বিসিসিআইয়ের।  আইপিএলের বিভিন্ন স্পনসরশিপ চুক্তি পর্যালোচনার জন্য গভর্নিং বডি বৈঠকও ডাকা হয়েছে বোর্ডের তরফে। 

আরও পড়ুনঃ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনালে গড়াপেটার তদন্ত,অরিবিন্দ ডি সিলভাকে ৬ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ

এবার বিসিসিআইয়ের অস্বস্তি এবার আরও বাড়িয়ে আইপিএল থেকে আইপিএল থেকে চিনা স্পনসরদের চুক্তি বাতিলের দাবি জানালেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অন্যতম মালিক নেস ওয়াদিয়া। ইতিমধ্যেই চিনা বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে দেশ থেকে ৫৯টি চিনা মোবাইল অ্যাপলিকেশন নিষিদ্ধ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।  নেস ওয়াদিয়াও সাফ জানিয়ে দিলেন, আইপিএলের সঙ্গে যতগুলি চিনা কোম্পানির চুক্তি রয়েছে সব বাতিল করা উচিত। এক সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অন্যতম কর্ণধার জানিয়েছেন,, ‘দেশের স্বার্থে আমাদের অবশ্যই এটা চিনা সংস্থার সঙ্গে আইপিএলের চুক্তি ছিন্ন করা উচিত। দেশ আগে, টাকা-পয়সা পরে। তাছাড়া এটা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগ, চাইনিজ প্রিমিয়র লিগ নয়। একটা উদাহরণ পেশ করে বাকিদের রাস্তা দেখানো দরকার।’

আরও পড়ুনঃএকইদিনে ভাইরাল গঙ্গোপাধ্যায় পরিবার,নেট দুনিয়ার মন জয় করলেন সৌরভ-ডোনা-সানা

আরও পড়ুনঃজর্জিনার রিং ফিঙ্গারে জ্বলজ্বল করছে হীরের আংটি,তাহলে কি আসন্ন রোনাল্ডোর বিয়ে

সুর চড়ালেও,ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সমস্যার প্রেক্ষিতে ওয়াদিয়া জানিয়েছেন,এই মরসুমে না হলেও, পরের মরসুম থেকে বিসিসিআইকে বিষয়টি নিয়ে ভাবনা চিন্তা করা উচিৎ। তিনি বলেছেন,'এটা ঠিক যে, তড়িঘড়ি নতুন স্পনসর খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তবে আমি নিশ্চিত, অনেক ভারতীয় সংস্থা রয়েছে, যারা আইপিএলকে স্পনসর করতে পারে। আমাদের অবশ্যই দেশের জন্য,সরকারের জন্য এবং সর্বোপরি যাঁরা নিজেদের প্রাণ সংশয়ে ফলছেন,সেই সব জওয়ানদের জন্য শ্রদ্ধা থাকা উচিত।'বিসিসিআইও ভাল মতনই জানে যত দিন য়াবে তত এই ধরনের চাপ বাড়বে। তাই তো কেন্দ্রীয় সরকার যা সিদ্ধান্ত নেবে তা মেনে নেওয়ার কথা আগেই বলেছে বিসিসিআই। বিকল্প পথ নিয়ে ভাবনা চিন্তাও শুরু করে দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।