দেশ জুড়ে ক্রমশ বাড়ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংংখ্যা। দেশের বিপদের দিনে দুঃস্থ, গরীব মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার উদ্যোগ আগেই নিয়ছিলেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। এবার  করোনা মোকাবিলায় আরও একবার মানবিকতার নজির গড়লেন বাংলার দাদা। সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায় ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে  বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের হাতে তুলে দেওয়া হল ৩১০০ কেজি চাল। কলকাতায় সিএবি অর্থাৎ ইডেন গার্ডেন্সের সামনে থেকেউ এই চাল বিতরণ করা হয়। পুরো কর্মকাণ্ড দাঁড়িয়ে থেকে  তদারকি করেন সিএবি সচিব অর্থাৎ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দাদা স্নেহাশিষ গঙ্গোপাধ্যায়।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে প্রতিদিন ১০ হাজার মানুষের খাওয়ার দায়িত্ব নিয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

করোনা মোকাবিলায় সংক্রমণ রুখতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। লকডাউনের মধ্যেও গরিব সাধারণ মানুষের মুখে অন্ন তুলে দেওয়াই লক্ষ্য সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ফাউন্ডেশন সহ এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর। যে ১০টি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতে চাল তুলে দেওয়া হয় তার মধ্যে অন্যতম ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস অ্যাসোসিয়েশন। কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে এদের শাখা রয়েছে। অন্য একটি সংস্থার মাধ্যমে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ফাউন্ডেশনের চাল এদিন পৌঁছে যায় বারুইপুর-আনন্দপুর অঞ্চলে এইচআইভি আক্রান্ত ছোট-ছোট ছেলেমেয়েদের মধ্যে। তালিকায় ছিল ওঙ্কারনাথ মিশনের মতো নাম। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন সংগঠন ও ক্লাবের মাধ্যমে এদিন চাল পৌঁছে যায় প্রয়োজনীয় মানুষদের কাছে। চাল তুলে দেওয়া হয় ময়দানের মালিদের হাতেও।

আরও পড়ুনঃবিরাট কোহলিকে পিছনে ফেলে উইজডেন ক্রিকেটার্স অ্যালমনাকের ২০২০-র সেরা ক্রিকেটার হলেন বেন স্টোকস

আরও পড়ুনঃবাংলাদেশে করোনা মোকাবিলায় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে যথাসাধ্য লড়াই চালাচ্ছেন 'বেঙ্গল টাইগার্সরা'

করোনা মোকাবিলায় ৫০ লক্ষ টাকার চাল দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। এছাড়াও গত পয়লা এপ্রিল ২ হাজার কেজি চাল নিয়ে বেলুরমঠে পৌছে গিয়েছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। দুঃস্থ মানুষদের বিতরন করা হয় সেই। প্রাক্তন ভারত অধিনায়কের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানানোর পাশাপাশি সৌরভের ভূয়সী প্রসংশা করা হয়েছিল বেলুরমঠের পক্ষ থেকে। তারপর গত ৫ তারিখ কলকাতার ইস্কন সেন্টারে যান সসৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সেখানে প্রতিদিন ১০ হাজার মানুষের খাবারের দায়িত্ব নেন বাংলার মহারাজ। এবার আরও ৩১০০ কেজি চাল বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মধ্যে বিলি করল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ফাউন্ডেশন। করোনা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সৌরভের মানবিক দিক থেকে তার অনুগামরা বলতে শুরু করেছে দাদার কীর্তি চলছে চলবে।