মার্কিন মুলুকে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যার পরই যে সকল ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা সরব হয়েছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাক্তন বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ড্যারেন সামি। ক্যারেবিয়ান তারকাই সোশ্যাল মিডিয়ায় বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে সরব হওয়ার জন্য আইসিসিকে আহ্বান জানিয়ছিলেন। তারপরই বিস্ফোরক অভিযোগ করে বলেছিলেন, আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদে হয়ে খেলার সময় তার সতীর্থরা তাকে কালু বলে ডাকত। পরে কালু শব্দের মানে জানতে পেরে স্যামি  বলেছিলেন তিনিও বর্ণবৈষম্যের শিকার। যদিও পরে তিনি বলেছিলেন তাকে ভালবেসেই কালু বলে ডাকা হত। কিন্তু এবার ভারতীয় সংস্কতির দিকেই সরাসরি অভিযোগের আঙুল তুললেন ভারতীয় সংস্কৃতির দিকে।

আরও পড়ুনঃআইসিসির চেয়ারম্যান পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শশাঙ্ক মনোহর,শুরু সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায়কে নিয়ে জল্পনা

ভারতীয় সংস্কৃতিতেই বর্ণবৈষম্য রয়েছে বলে অভিযোগ করেন ক্যারেবিয়ান তারকা। তার অভিযোগের স্বপক্ষে তিনি 'ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির' বিজ্ঞাপনকে সামনে রেখে সামি বলেন,ভারতের সংস্কৃতিতেই রয়েছে বর্ণবাদ। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ভারতের সংস্কৃতি যদি বৈটিত্র্যময় হয়, তবে কোনও ক্রিম তাদের প্রচারে এমন নাম কীভাবে ব্যবহার করতে পারে? ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি নামেই স্পষ্ট যে, ভারতে বর্ণবাদ রয়েছে। গায়ের রং অনুযায়ী এখানে সৌন্দর্য্য বিচার করা হয়। একটি সাক্ষাৎকারে সামি বলেছেন, 'তোমাদের বিজ্ঞাপন ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি বুঝিয়ে দেয় সুন্দর মানুষরা ফর্সা হয়। এ থেকে কী বার্তা যায়? এতে বর্ণবাদের স্পষ্ট ইঙ্গিত রয়েছে।' এছাড়াও সামি বলেন, 'তার মানে যাঁরা ফর্সা তারাই একমাত্র লাভলি, তাই তো? এই সংস্থার নামের মনে তো এমনই! আসলে এই ধরনের নামগুলোও বর্ণবিদ্বেষের উদাহরণ।'

আরও পড়ুনঃআমাকে তিনে ব্য়াট করতে পাঠানোর সিদ্ধান্ত সচিনের,গ্রেগ চ্যাপেলের নয়,বিস্ফোরক দাবি ইরফান পাঠানের

আরও পড়ুনঃআইপিএল থেকে চিনা স্পনসর বাতিলের দাবি ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকের,আরও অস্বস্তিতে বিসিসিআই

পাশাপাশি এও বলেছেন সামি, ভারতে আইপিএল খেলা কালীন তার অনেক বাল ভাল স্মৃতি রয়েছে। অনেক বন্ধুও রয়েছে। ইশান্ত শর্মাও যে তাকে ভালবেসে কালু বলে ডাকত সেকথা এদিনও ফের বলেছেন ড্যারেন সামি। ইশান্ত শর্মার সঙ্গে দেখা হলে ফের তাকে বুকে টেনে নেবেন বলেও জানান সামি। কিন্তু  ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির' বিজ্ঞাপন নিয়ে যে প্রশ্ন তুলে দিলেন ড্যারেন সামি, তাতে নয়া বিতর্কের সৃষ্টি হল বলেই মনে করছেন সকলে।