করোনা ভাইরাসের জেরে প্রায় গোটা বিশ্ব জুড়েই চলছে লকডাউন। গৃহবন্দি অবস্থায় জীবন কাটাচ্ছেন ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা। প্রাক্তন থেকে বর্তমান সকল ক্রিকেটাররাই ব্যস্ত পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে। কেউ এবার নিজের সখ পূরণ করতে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক রিকি পন্টিং অবসর সময় পরিবারের সঙ্গে কাটানোর পাশাপাশি করছেন স্মৃতি রোমন্থন। নিজের ক্রিকেট জীবনের একের পর এক ছবি বা ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করছেন দু-দুটি বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক। 
আরও পড়ুনঃকরোনা বিরুদ্ধে যুদ্ধকে ‘মাদার অফ অল ওয়ার্ল্ড কাপস’ বলে আখ্যা রবি শাস্ত্রীর
আরও পড়ুনঃমে মাস থেকে ইতালিতে দর্শকশূন্য মাঠে শুরু ফুটবল,ফেডারেশনের ভাবনা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন
বুধবার নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে শোয়েব আখতারের একটি ওভারের ভিডিও শেয়ার করেছেন রিকি পন্টিং। শোয়েবের সেই ওভারের প্রতিটি বলই ছিল আগুনে গতির। প্রথম ডেলিভারিটাই মারাত্মক গতিতে ধেয়ে আসে পন্টিংয়ের দিকে। প্রাক্তন অজি তারকা সেই দুরন্ত গতিতে ধেয়ে আসা বলের লাইন থেকে কোনও রকমে নিজেকে সরিয়ে নেন। শোয়েব এগিয়ে এসে পন্টিং-এর দিকে হাত না়ড়ান। সেই ওভারেই শোয়েব ঘণ্টায় দেড়শো কিলোমিটার বেগে বল করেন। অফ স্টাম্পের বাইরের সেই বল ছেড়ে দেন পন্টিং। পরের বলটাই ঘণ্টায় ১৪৬ কিলোমিটার বেগে ধেয়ে আসে পন্টিংয়ের দিকে। শোয়েবের সেই দারুণ গতির ওভারের ভিডিয়ো পোস্ট করে পন্টিং লেখেন, “আগের দিন আমার জীবনের সেরা স্পেলের কথা বলেছিলাম। আর এ বার আমার জীবনের সবচেয়ে দ্রুতগতির ওভারের ভিডিয়ো পোস্ট করলাম। শোয়েবের সেই ওভার যখন সামলাচ্ছিলাম, বিশ্বাস করুন বিপরীত প্রান্তে দাঁড়ানো জাস্টিন ল্যাঙ্গার অনেকটাই দূরে দাঁড়িয়ে ছিল। ’’


পন্টিংয়ের ট্যুইটের জবাব দিতে দেরি করেননি পাকিস্তানের প্রাক্তন স্পিড স্টার। শোয়েব আখতার রিকি পন্টিংয়ের টুইটের জবাবে লেখেন, ‘‘একমাত্র রিকি পন্টিং এটাকে এভাবে খেলতে পারে। ও খুব সাহসী। আর জাস্টিন ল্যাঙ্গার অবশ্যই নন-স্ট্রাইকার এন্ডেই তাকতে চাইবে। ''

এই মাসের শুরুতে পন্টিং একটি ভিডিও শেয়ার করেছিলেন ২০০৫-এর অ্যাশেজের। যেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফের বল ফেস করছেন। তিনি সেই ভিডিওতেই লিখেছিলেন সেরা যা তিনি ফেস করেছেন। ফ্লিনটফের সেই ওভারে রিকি পন্টিংকে রীতিমতো সমস্যায় পড়তে দেখা যায় এবং তাঁর বলেই আউট হন তিনি। 
রিকি পন্টিং অস্ট্রেলিয়ার সেরা অধিনায়কদের মধ্যে একজন। তাঁর অধিনায়কত্বে ২০০৩ ও ২০০৭-এ বিশ্বকাপ জেতে অস্ট্রেলিয়া।২০১২তে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন তিনি। তার আগে তিনি ১৬৮টি টেস্ট, ৩৭৫টি ওডিআই ও ১৭টি টি২০ খেলেছেন দেশের হয়ে।  রান করেছেন টেস্টে ১৩,৩৭৮, ওয়ান ডে-তে ১৩,৭০৪, টি-টোয়েন্টিতে ৪০১। টেস্ট ও ওয়ান ডে-তে ৪১টি ও ৩০টি সেঞ্চুরিও রয়েছে পন্টারের নামে।
আরও পড়ুনঃদলবদলে ফের চমক ইষ্টবেঙ্গলের,বলবন্তের পর লাল-হলুদে পাকা বিক্রমজিৎ সিং ও চুলোভা