বিশ্ব জুড়ে কমার নাম নেই মারণ ভাইরাস করোনার দাপট। প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। ক্রমেই লম্বা হচ্ছে মৃত্যু মিছিল। কোভিড ১৯-এর দাপটে ত্রস্ত গোটা পৃথিবী। যে দেশগুলির অবস্থা সবথেকে বেশি ভয়াবহ সেই তালিকায় রয়েছে ইতালির নামও। করোনা ভাইরাস ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে ইতালির ইতালি, স্পেন, ব্রিটেন, ফ্রান্স সহ সমগ্র ইউরোপের ক্রীড়া ক্ষেত্রে। করোনার প্রভাব বিস্তারের পরপরই স্থগিত রাখা হয় ইউরোপের সমস্ত ফুটবল টুর্নামেন্টগুলি। মার্চ মাস থেকে ইতালিতেও বন্ধ প্রধান লিগ সিরি এ সহ সমস্ত ফুটবল লিগ ও টুর্রনামেন্ট। দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তা সামাল দিতে হিমসিম খাচ্ছে ইতালির প্রশাসন। কিন্তু এই পরিস্থিতিতেই ফের ফুটবল শুরু করতে উদ্যোগী হয়েছে ইতালির ফুটবল ফেডারেশন। যেই খবর প্রকাশ্য়ে আসার পরই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে গোটা বিশ্ব জুড়ে। 
আরও পড়ুনঃদলবদলে ফের চমক ইষ্টবেঙ্গলের,বলবন্তের পর লাল-হলুদে পাকা বিক্রমজিৎ সিং ও চুলোভা

ইতালির ফুটবল ফেডারশন সূত্রে খবর, সব পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে মে মাস থেকে ফের ফুটবল চালু করার কথা ভাবছেন ফেডারেশনের কর্তারা। মার্চ মাস থেকে আর কোনও ফুটবল ম্যাচ হয়নি ইতালিতে। যারফলে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে ক্লাবগুলিকে। ফিফার তরফ তেকেও সম্প্রতি বলা হয়েছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে চলতি বছরে লিগ এগোনো বা পিছোনোর ক্ষেত্রে সবরকম সিদ্ধান্ত নিতে পারবে সেদেশের ফুটবল সংস্থা। ফুটবল শুরু করার ইচ্ছে প্রকাস করলেও, তবে তা এখনই নয়। ইতালির ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,  মে মাসের শেষ দিকে পুনরায় লিগ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে তাঁদের। প্রথমে অসামাপ্ত লিগ, তারপর নতুন মরসুম শুরু করা হবে। তবে মাঠে ফুটবল ফিরলেও, সমর্থকদের আপাতত আগামী এক বছর মাঠে বসে খেলা দেখা হচ্ছে না। ২০২১ সাল পর্যন্ত স্টেডিয়ামের দরজা বন্ধ রাখার পরিকল্পনা। সে ক্ষেত্রে এই মরশুম তো বটেই নতুন মরশুমেরও অনেকটা সময় স্টেডিয়ামে বসে রোনাল্ডোদের খেলা দেখা যাবে না।
আরও পড়ুনঃকরোনায় জারি মৃত্যু মিছিল,জরুরি পরিষেবার তকমা নিয়ে মার্কিন মুলুকে শুরু ডব্লু.ডব্লু.ই
আরও পড়ুনঃবাতিল হতে চলেছে আইলিগের বাকি ২৮টি ম্যাচ, খবর ফেডারেশন সূত্রে
কিন্তু এত তড়িঘডি ইতালিতে ফুটবল শুরু করার উদ্যোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ইতালির কিংবদন্তী ফুটবলার মালদিনি। এছাড়াও করোনায় আক্কান্ত হয়েছেন জুভেন্তাসের ড্যানিয়েল রুগানি, ব্লেইজ মাতুইদি, পাওলো দিবালার মত তারকা ফুটবলাররা। এছড়াও একাধিক ক্লাবে ফুটবলার সহ সাপোর্টিং স্টাফরা কোভিড ১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত।  ফলে এই পরিস্থিতিতে দর্শকশূণ্য স্টেডিয়ামে হলেও ফুটবল ষুরু করা যথেষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবেই বলে মনে করছেন ফুটবল বিশেষজ্ঞরা।