একজন ক্রিকেটের ঈশ্বর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ১০০ সেঞ্চুরির মালিক। অপর জন আধুনিক ক্রিকেটের গ্রেট। রান মেশিন। সচিন তেন্ডুলকর ও বিরাট কোহলি। একজনকে ক্রিকেট অবসর  জানালেও, প্রায়শই তুলনা হয় ভারতীয় তথা বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা দুই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে। দুজনের প্রসঙ্গে নানা মুনির নানা মত। কেউ এগিয়ে রাখেন মাস্টার ব্লাস্টারকে, কেউ এবার এগিয়ে রাখেন বিরাট দ্য রান মেশিনকে। রানের খিদে দুজনের একরকম হলেও, চারিত্রিক গুনাবলীর দিক থেকে দুজনেই ভিন্ন মেরুর। এ বার দুই সময়ের দুই কিংবদন্তির তুলনা করলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক ওয়াসিম আক্রম। তাও আবার স্লেজিং নিয়ে। তুলনা করতে গিয়ে দু’জনের আচরণগত পার্থক্যের হদিশ দিলেন পাক কিংবদন্তি ওয়াসিম আক্রম।

আরও পড়ুনঃ'তিনি অন্যরকম গেম খেলতেন', গুরু গ্রেগকে আক্রমণ ভাজ্জি ও যুবির

আক্রমের বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিন খেলেছেন সচিন তেন্ডুলকর। সেই লড়াইও ছিল দেখার মত। আক্রম সচিন জিতেছেন, কখনও আবার পাক তারকা। ২০০৩ বিশ্বকাপের সুপার সিক্সের ম্যাচে আক্রম মারা সচিনের ব্যাক ফুট ড্রাইভটা হয়তো আজও ভোলেননি তিনি। এবার ‘সুইং অফ সুলতান’ পার্থক্য বোঝালেন বোলারদের বিরুদ্ধে দুই ব্যাটসম্যান কেমন আচরণ করেন সে ব্যাপারে। আক্রমের কথায়, বোলারের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বিরাট এবং সচিনের রিঅ্যাক্ট সম্পূর্ণ ভিন্ন। প্রাক্তন বাঁ-হাতি পেসারের কথায় বোলার স্লেজিং করলে মেজাজ হারিয়ে ফেলে বিরাট, যা তাঁর উইকেট তুলে নিয়ে কখনও কখনও সাহায্য করে বোলারকে।  

আরও পড়ুনঃ১৯৮৩-র ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হারের কারন কী ছিল, জানালেন মাইকেল হোল্ডিং

আরও পড়ুনঃআইলিগে কমছে বিদেশি প্লেয়ারের সংখ্যা, ক্লাবগুলির সম্মতিতে সিদ্ধান্ত ফেডারেশনের

সচিন প্রসঙ্গে ওয়াসিম আক্রম বলেন, সচিন আবার শান্ত স্বভাবের কিন্তু আগ্রাসী। ওর শরীরী ভাষাটা অন্য রকমের। বোলার হিসেবে এই দিকগুলো দেখতে হয়।’’ ‘মাস্টার ব্লাস্টার’কে ফেরানোর জন্য আক্রম নানা রকমের ডেলিভারি করতেন। সেই সঙ্গে চলত স্লেজিংও। আক্রম বলছেন, ‘‘সচিন জানত আমি ওকে স্লেজিং করব। তখন ও আরও দৃঢ় হয়ে যেত। এটাই আমার মূল্যায়ন। আমি অবশ্য ভুলও হতে পারি। সম্প্রতি আকাশ চপোড়ার ইউটিউব চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন আক্রম। সেখানেই আকাশ চোপড়ার প্রশ্নের উত্তরে দুই গ্রেট ব্যাটসম্যানের মূল্যায়ন করেন তিনি। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের মতে, সরসারি না বললেও, স্লেজিং সামলানোর ক্ষেত্রে কোহলির থেকে সচিনকেই কিছুটা এগিয়ে রাখছেন আক্রম।