দু দশকের বেশি সময় ধরে দেশের জার্সিতে খেলা হয়ে গেলেও, বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্নটা তখনও অধরাই ছিল মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকরের। মাঝে ২০০৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে হার প্রতিনিয়ত আঘাত দিত ব্যাটিং কিংবদন্তীকে। অবসরের আগে বিশ্বকাপটা একবার হাতে নিতে চেয়েছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একশো সেঞ্চুরির মালিক। সচিন তেন্ডুলকরের সেই স্বপ্ন ২০১১ সালে পূরণ করেছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। তাও আবার ক্রিকেটে ঈশ্বরের ঘরের মাঠ ওয়াংখেড়েতে। তাই গোটা স্বাধীনতা দিবসের সন্ধায় যখন সকলকে কাঁদিয়ে ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন এমএস ধোনি, তখন নিজের আবগেটাও ধরে রাখতে পারেননি সচিন। সোশ্যাল মিডিয়ায় তার আবেগ ঘন বার্তা ও ধোনির প্রতি সম্মান মন ছুঁয়ে গিয়েছে সকলের।

আরও পড়ুনঃসৌরভ যে 'দাদা',তা বুঝিয়ে দিলেন ধোনির অবসর নিয়ে করা এই মন্তব্যে

শনিবার সন্ধায় ধোনির অবসরের খবর ছড়িয়ে পড়তেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ধোনিকে তার আগামি জীবনের জন্য ও বর্ণময় কেরিয়ারের জন্য শুভেচ্ছা জানান ক্রিকেটার থেকে ধোনির কোটি কোটি ভক্ত-অনুগামীরা। সেই তালিকা থেকে বাদ যাননি সচিন তেন্ডুলকর। তাই ধোনি যখন জানিয়ে দিলেন, তিনি আর দেশের হয়ে মাঠে নামবেন না, তখন সচিন টিম ইন্ডিয়ায় মাহির অপরিসীম অবদানের কথা স্মরণ করতে ভুললেন না। একইসঙ্গে আগামি জীবনের জন্য শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন সচিন। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লেখেন,'মহেন্দ্র সিং ধোনি ভারতীয় ক্রিকেটে তোমার অবদান অপরিসীম। তোমার সঙ্গে একইসাথে ২০১১ বিশ্বকাপ জয় আমার জীবনের সেরা মুহূর্ত। দ্বিতীয় ইনিংসের জন্য তুমি এবং তোমার পরিবারকে শুভেচ্ছা।'

 

 

আরও পড়ুনঃটেস্ট ক্রিকেট থেকে ওডিআই-টি২০, একঝলকে ফিরে দেখা মাহির আন্তর্জাতিক কেরিয়ার

আরও পড়ুনঃধোনির ৫টি আন্তর্জাতিক রেকর্ড, যা ভাঙা একপ্রকার অসম্ভব

দীর্ঘ কেরিয়ারে অধরা স্বপ্ন যে সচিন তেন্ডুলকরের পূরণ করে দিয়েছিলেন ধোনি। তার জায়গা বা নিজের বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়কের জায়গা যে সচিনের কাছে আলাদাই হবে, সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর যে ব্য়ক্তি দেশকে তিন তিনটি আইসিসি ট্রফি চ্যাম্পিয়ন করিয়েছেন, ব্যাট হাতে ১০ হাজারের বেশি রান করেছেন, উইকেটের পেছনের দায়িত্বও সামলেছেন দক্ষতার সঙ্গে, তার অবদান অপরিসীম নিশ্চই। তাই ধোনির বিদায়ে ভারাক্রান্ত মাস্টার ব্লাস্টারও।