নিজের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সকলকে জানিয়েছিলেন পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদি। এযাবৎ কালে সবথেকে হাই প্রোফাইল ক্রিকেটার হিসেবে মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন  পাক তারকা। সোশ্যাল মিডিয়য়ায় শাহিদ আফ্রিদি জানিয়েছিলেন,‘বৃহস্পতিবার থেকেই শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। খুব খারাপ বোধ করছিলাম। উপায় না দেখে করোনা পরীক্ষা করাই এবং দুর্ভাগ্যবশত রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। দ্রুত সুস্থতার জন্য তোমাদের প্রার্থনা চাইছি, ইনশা আল্লাহ।’ আফ্রিদির করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ক্রিকেট বিশ্বে। সকলেই দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন তার।

আরও পড়ুনঃকরোনাকে হারিয়ে জীবন যুদ্ধে জয়ী হলেন প্রাক্তন রঞ্জি জয়ী ক্রিকেটার

কিন্তু এক সপ্তাহের মধ্যে আফ্রিদির শারীরিক অবস্থার কোনও খবর না মেলায় উদ্বেগ বাড়তে থাকে সকলের মধ্যে।  সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয়ে যায় নানা ধরনের গুঞ্জন।  গত কয়েকদিনে সেই জল্পনা আরও জোরদার হয়। নেটিজেনদের আগ্রহ নিরসন করতে এগিয়ে আসেন আফ্রিদি নিজেই। সোশ্যাল মিডিয়াতেই তিনি আপডেট দেন নিজের স্বাস্থ্যের। ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় আফ্রদি জানান, প্রথম কয়েকদিন ভীষণ অস্বস্তিতে ছিলেন। আপাতত তিনি ভালো রয়েছেন। আফ্রিদি বলেন, ‘প্রথম ২-৩ দিন খুবই কঠিন ছিল। তবে গত কয়েকদিনে আমার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। আতঙ্কের কিছু নেই। যতক্ষণ না তুমি নিজে রোগের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছ, ততক্ষণ তাকে হারাতে পারবে না।’

আরও পড়ুনঃনির্বাসন শেষে ফের ক্রিকেটে ফিরতে চলেছেন শ্রীসন্থ

আরও পড়ুনঃআইএসএলে কমছে বিদেশির সংখ্যা,আগামী মরসুম থেকে লাগু হচ্ছে একাধিক নয়া নিয়ম

করোনা বিরুদ্ধে ২২ গজের প্রতিপক্ষের মতই লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন আফ্রিদি। হার স্বীকার করার পাত্র তিনি নন। কিন্তু একটা বিষয়ে খুন আঘাত বা কষ্ট পাচ্ছেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ক। নিজের সন্তানদের দেখতে পারছেন না, কাছে টেনে নিতে পারছেন না, আদর করতে পারছেন না, এই বিষয়গুলি তাকে খুব নাড়া দিয়ে যাচ্ছে। প্রাক্তন পাক তারকা বলেন, ‘আমার কাছে সবথেকে কষ্টের বিষয় হল সন্তানদের খেয়াল রাখতে না পারা। তাদের বুকে জড়িয়ে ধরতে না পারা। আমি সন্তানদের অভাব টের পাচ্ছি। তবে আশেপাশে যারা আছে, তাদের সুরক্ষার জন্যই সতর্কতা অবলম্বন করা ও দূরত্ব বজায় রাখা জরুরি।’ আফ্রিদির দুঃখের কথা বুঝলেও, তার শারীরিক অবস্থার খবর পেয়ে কিছুটা স্বস্তিতে তার অনুগামীরা। গুঞ্জন স্তিমিত হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও। সকলেই বুম বুমের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন।