ভারতীয় এ দলের হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাওয়া তাঁর সাতজন সতীর্থ জাতীয় দলে ডাক পেলেন। কিন্তু উপেক্ষিতই থাকলেন শুভমন গিল। ক্যারিবিয়ান সফরে দুরন্ত পারফরম্যান্স করেও জাতীয় দলে ডাক না পেয়ে নিজের হতাশা চেপে রাখতে পারলেন না প্রতিশ্রুতিমান এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। 

আরও পড়ুন- ভারতীয় দলের আগামী পরিকল্পনায় আদৌ কি আছেন মাহি, মুখ খুললেন প্রসাদ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের বিরাট কোহলির দলে ভারতীয় এ দল থেকে মোট সাতজন ক্রিকেটার সুযোগ পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন মনীশ পান্ডে, শ্রেয়স আইয়ার, ওয়াশিংটন সুন্দর, খলিল আহমেদ, নভদীপ সাইনি, দীপক চাহার এবং রাহুল চাহার। একদিন এবং টি টোয়েন্টির দল মিলিয়ে সুযোগ পেয়েছেন এই ক্রিকেটাররা। কিন্তু এই তালিকায় শুভমনের নাম না দেখে অবাক অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা নিয়ে নিজেদের ক্ষোভও জানিয়েছেন অনেক সমর্থক। 

আরও পড়ুন- ম্যাচ প্রতি দুশো টাকা থেকে ভারতের নীল জার্সি, গম্ভীরের কাছে ঋণী সাইনি

নির্বাচক প্রধান এমএসকে প্রসাদ নিজেই জানিয়েছেন, দল গঠনের সময় ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ দলের বিরুদ্ধে ভারতীয় এ দলের ক্রিকাটারদের পারফরম্যান্সকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা হয়েছে। অথচ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ৫৪.৬০ গড়ে পাঁচ ম্যাচে ২১৮ রান করেছেন পঞ্জাব তনয়। তিনটি অর্ধশতরানও করেন তিনি। তার পরেও এ বার জাতীয় দলের দরজা খুলল না গিলের জন্য। এবারের আইপিএলেও কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে দারুণ পারফরম্যান্স করেছিলেন গিল। 

বিষয়টি নিয়ে নিজের হতাশা গোপন করেননি গিল। একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, 'সিনিয়র দলে সুযোগ পাওয়ার জন্য আমি সত্যিই অপেক্ষা করছিলাম। আশা করেছিলাম, অনন্ত যে কোনও টেস্ট, টি টোয়েন্টি বা একদিনের ম্যাচের মধ্যে যে কোনও একটি স্কোয়াডে আমি সুযোগ পাব।'
তবে এই হতাশা ঝেঁড়ে ফেলে যে তিনি নতুন করে নির্বাচকরদের জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার লড়াই শুরু করবেন, তাও বুঝিয়ে দিয়েছেন এই প্রতিশ্রুতিমান ব্যাটসম্যান। তিনি বলেন, 'সুযোগ না পাওয়াটা হতাশাজনক ঠিকই। কিন্তু সেটা নিয়ে ভেবে আমি সময় নষ্ট করতে চাই না। আরও বেশি করে রান করে আমি নির্বাচকদের চোখে পড়ার চেষ্টা করব।'

নির্বাচক প্রধান প্রসাদের অবশ্য দাবি, নিউজিল্যান্ড সফরের সময় কে এল রাহুল সাসপেন্ড থাকায় সুযোগ পেয়েছিলেন গিল। কিন্তু এখন রাহুল দলে ফিরে আসায় ফের অপেক্ষা করতে হবে শুভমনদের। তবে পঞ্জাবের ব্যাটসম্যান যে ভালভাবেই নির্বাচকদের ভাবনার মধ্যে রয়েছেন, তা স্বীকার করে নিয়েছেন প্রসাদ।