চেন্নাই সুপার কিমস শিবিরে করোনা ভাইরাস থাবার বসানোর পরের দিন আইপিএল না খেলে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সুরেশ রায়না। ব্যক্তিগত কার দেখিয়ে দেশে ফিরেছিলেন রায়না। তবে ঠিক কি কারণে আইপিএল খেললেন না রায়না তা নিয়ে জল্পনা এখনও অব্যাহত। তবে ২৯ তারিখ জানা যায় পাঠানকোটে রায়নার পিসির বাড়িতে ভয়হ্কর দুষ্কৃতী হামলা হয়। ধারাল অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। যাতে প্রাণ হারান রা.নার পিসেমশাই। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে জীবনের সঙ্গে লড়াই করছেন রায়নার পিসি। জানা য়ায় পরিবারের আরও চার সদস্য গুরুতর আহত হয়েছেন।

আরও পড়ুনঃকরোনা মুক্ত চেন্নাই সুপার কিংস, আইপিএলের মূল স্রোতে ফেরার অপেক্ষায় ধোনিরা

তবে এই বিষয়ে এতদিন কোনও মুখ খোলেননি সুরেশ রায়না। অবশেষে দেশে ফিরে এই ভয়হ্কর হামলার ঘটনা নিয়ে সরব হলেন প্রাক্তন ভারতীয় তারকা। ঘটনায় বিচারের দাবিও জানিয়েছেন সুরেশ রায়না। ট্যুইটারে রায়না লিখেছেন,'পঞ্জাবে আমার পরিবারের সঙ্গে যা ঘটেছে, তাকে ভয়ঙ্কর বলাও যথেষ্ট নয়। আমার পিসেমশাইকে হত্যা করা হয়েছে। আমার পিসি ও তুতো ভাইদের আহত করা হয়। বেশ কিছুদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করার পর আমার তুতো ভাই গত রাতে মারা গিয়েছে। আমার পিসি অত্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় লাইফ-সাপোর্টে রয়েছেন।' এই ঘটনার পর থেকেই আতঙ্কে রয়েছে রায়নার পুরো পরিবার।

আরও পড়ুনঃসৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে দলে ফেরানোর জন্য সরব হয়েছিলেন প্রণববাবু,জানুন সেই কাহিনি

আরও পড়ুনঃসব বাধা টপকে রেকর্ড গড়বে এবারের আইপিএল, আত্মবিশ্বাসে ভরপুর সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

ঘটনার ভয়াবহতার কথা তুলে ধরে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিংয়ের কাছে দোষীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন রায়না। আরও একটি ট্যুইটে রায়না পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং এবং পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয়কেল ট্যাগ করে লেখেন,'আজ পর্যন্ত আমরা জানি না, সেই রাতে ঠিক কী ঘটেছিল এবং কারা এটা করেছে। আমি পঞ্জাব পুলিশকে অনুরোধ করছি বিষয়টিতে নজর দেওয়ার। আমাদের এটা জানার অধিকার আছে, কারা ওদের সঙ্গে এমন জঘন্য কাজ করেছে। এই সব অপরাধীদের আরও অপরাধ করে বেড়াতে দেওয়া উচিত নয়।' ঘটনার তদন্ত পুললিস শুরু করলেও এখনও পর্যন্ত কাওকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি বলে চাপা অসন্তোষও রয়েছে রায়নার পরিবারে। তবে এই কারনের জন্য রায়না আইপিএল না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কিনা সেই বিষয়ে খোলসা করে কিছু বলেননি।