অসামান্য ধৈর্য্য, চোখ ধাঁধানো কভার ড্রাইভ, অন ড্রাইভ, কব্জির মোচর। এসব কিছু এখন অতীত। ২৩ বছরের কেরিয়ারের ইতি টেনে অবশেষে সর্বস্তরের ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করলেন ওয়াসিম জাফর। দেশের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ১৫০টি রঞ্জি ট্রফি ম্যাচ খেলার নজির রয়েছে বিদর্ভের এই তারকা ওপেনিং ব্যাটসম্যানের। যদিও মুম্বাইয়ের হয়েই কেরিয়ারে বেশিরভাগ সময় ক্রিকেট খেলেছেন জাফর। 

আরও পড়ুনঃফের ব্যাট হাতে ২২ গজে সচিন-লারা, নস্টালজিয়ায় ভাসতে আপনারা তৈরি তো

দেশের জার্সি গিয়ে বেশ কিছু অনবদ্য ইনিংস রয়েছে ওয়াসিম জাফরের। ২০০০ সালে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক তার। দেশের হয়ে মোট ৩১টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন জাফর। ৫৮ ইনিংসে তার সংগ্রহ ১৯৪৪ রান। ৫টি সেঞ্চুরি ও ১১টি হাফ সেঞ্চুরিও রয়েছে এই মুম্বাইকারের। সর্বোচ্চ স্কোর ২১২, গড় ৩৪.১১। ২টি আন্তর্জাতিক একদিনের ম্যাচও খেলেছেন জাফর। বিশেষ করে ঘরোয়া ক্রিকেটে তার পারফরমেন্স এককথায় ঈর্ষনীয়। ১৯৯৬-৯৭ মরসুমে ঘরোয়া ক্রিকেটে পা রাখেন তরুণ জাফর। শুরু থেকেই নিজের জাত চেনাতে থাকেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটের বর্ণময় কেরিয়ারে ২৩ বছরে ২৬০টি ম্যাচে তার সংগ্রহ ১৯ হাজার ৪১০ রান। ৫৭টি সেঞ্চুরি ও ৯১টি অর্ধতরানের মালিক জাফর।  গড় ৫০.৭, সর্বাধিক স্কোর ৩১৪। এছড়াও ১৫০টি রঞ্জি ম্যাচ খেলার রেকর্ডও রয়েছে জাফরের ঝুলিতে। 

আরও পড়ুনঃপ্রথমবার বিশ্বজয়, লক্ষ্যে স্থির ভারতীয় মহিলা দল

আরও পড়ুনঃআইপিএল শুরুর আগেই ধাক্কা খেল দিল্লি, অদ্ভুত কারণ দেখিয়ে নাম তুললেন ওকস

এহেন কেরিারের ইতি টানতে গিয়ে আবেগঘন হয়ে পড়েন জাফর। এক বিবৃতিতে তিনি জানিয়েছেন, সর্বশক্তিমান ঈশ্বরকে অনেক ধন্যবাদ যে তিনি ক্রিকেট খেলার মত একটি সুন্দর প্রতিভা দিয়েছে। পুরো কেরিয়ারে পাশে থাকার জন্য নিজের পরিবারকেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। এছড়া স্কুল জীবন থেকে শুরু করে কেরিয়ারের শেষ পর্যন্ত সকল কোচ ও অধিনায়কদের প্রতিও কৃতিজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন ওয়াসিম জাফর। অবসর জীবনের জন্য জাফরকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন অনেকে। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রথম শ্রেণির ত্রিকেটে অসামন্য অবদানের জন্য আজীবন জাফরকে মনে রাখবে ভারতীয় ক্রিকেট।