২২টি টানটান ম্যাচ, ১৪ দিনের লড়াইয়ের পর অবশেষে ফাইনাল। রবিবার মেলবোর্নে আইসিসি টি-টোয়ন্টি মহিলা বিশ্বকাপের ফাইনালে মুখোমুখি হতে চলেছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়ার ঘরের মাঠে তিনবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী ও ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের মুখোমুখি হতে প্রস্তুত হরমনপ্রীত কউরের দল। এটিই ভারতীয় মহিলা দলের প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনাল। তাই ইতিহাস তৈরি করতে মুখিয়ে রয়েছে টিম ইন্ডিয়া। ম্যাচ ঘিরে ইতিমধ্যেই চড়তে শুরু করেছে উন্মাদনার পারদ।  ম্যাচ দেখতে মেলবোর্নে ৭৫ হাজার টিকিট বিক্রি হয়ে গিয়েছে। মেগা ফাইনালের একটি টিকিট পেতে হাহাকার জুড়েছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। ফাইনালের জন্য ছাপানো হচ্ছে অতিরিক্ত টিকিটও। ফলে ৯০ হাজারেরও বেশি দর্শক মেলবোর্নে খেলা দেখার সম্ভাবনা রয়েছে ফাইনালে। 

আরও পড়ুনঃফের ক্রোমার ঘাড়েই কোপ ইষ্টবেঙ্গলের, খারাপ খেলেও রয়ে গেলেন এস্পাদা

বিশ্বকাপে গ্রুপ লিগের প্রথম ম্যাচে আয়োজক দেশ অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে অভিযান শুরু করেছিল ভারত। এরপর একে একে বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমির টিকিট অর্জন করে টিম ইন্ডিয়া। কিন্তু বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয় ভারত-ইংল্যান্ড সেমিফাইনাল। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ও একটিও ম্যাচ না হারার কারণে আইসিসির নিয়মানুসারে সরাসরি ফাইনালের টিকিট অর্জন করে ভারতীয় মহিলা দল। অপরদিকে, গ্রুপের প্রথম ম্যাচ ভারতের বিরুদ্ধে হারলেও, পরপর তিনটি ম্যাচ জিতে সেমিতে পৌছে যায় মেগ ল্যাানিংয়ের দল। সেমিফাইানালে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৫ রানে হারিয়ে ফাইনালে পৌছায় ব্যাগিগ্রিনরা।

আরও পড়ুনঃআইপিএল শুরুর আগেই ধাক্কা খেল দিল্লি, অদ্ভুত কারণ দেখিয়ে নাম তুললেন ওকস

আরও পড়ুনঃরঞ্জি ফাইনালের আগে দ্বিতীয়বার বাবা হলেন ঋদ্ধিমান সাহা

ঘরের মাঠে ফাইনালে অস্ট্রলিয়াকে কিছুটা এগিয়ে রাখছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। দুই দলের মুখোমুখি পরিসংখ্যানের বিচারেও অনেকটা এগিয়ে অজিরা।  ১৯ বারের সাক্ষাতে ভারত জিতেছে মাত্র ৬টি, ১৩টি ম্যাচে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। চলতি বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে ভারতের বিরুদ্ধে হারের পর দুরন্তভাবে কামব্যাক করেছে ক্যাঙারু ব্রিগেড। ব্যাটিংয়ে দারুণ ছন্দে রয়েছেন হেলি, মুনি, গার্ডনার, ল্যানিংরা। বোলিং বিভাগেও ফর্মে রয়েছেন স্কাট, স্ট্রানো, ক্যারে, কিমিন্স, জনাসেনরা। এছড়াও তিনবার বিশ্বকাপ জয় ও ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অভিজ্ঞতাও ব্যাগি গ্রিণদের অনেকটা এগিয়ে রাখছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

যদিও পরিসংখ্যান, অস্ট্রেলিয়ার ঘরের মাঠ, প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালের চাপ এইসব কিছু নিয়ে ভাবতেই নারাজ হরমনপ্রীত কউর, স্মৃতি মন্দনা, শেফালি ভার্মা, দীপ্তি শর্মারা।  টিম গেমের উপর ভরসা করেই বিশ্বকাপ জয়ের ছক কষছে হরমনপ্রীত কউরের দল। ওপেনিং স্মৃতি মন্দনার দায়িত্বশীাল ব্যাটিং ও শেফালি ভার্মাার বিধ্বংসী ব্য়াটিং চলতি বিশ্বকাপে বারবার বিপক্ষের কাছে ত্রাসের সঞ্চার করেছে। মিডল অর্ডারেও ফর্মে রয়েছেন রড্রিগেজ, কৃষ্ণামূর্তি, দীপ্তি শর্মারা। বোলিংয়েও প্রয়োজনের সময় দলকে সাফল্য এনে দিয়েছেন শিখা পাণ্ডে, রাজেশ্বরী গায়কোয়ার্ড, পুণম যাদবরা। অধিনায়ক হরমনপ্রীতের ব্যাট এখনও সেভাবে কথা না বললেও, বড় ম্যাচে পারফর্ম করার জন্য মরিয়া ভারত অধিনায়ক। ফলে পিছিয়ে থেকে নয়, অসিদের চোখে চোখ রেখে লড়াই করতে প্রস্তুত ব্লু ব্রিগেড। ভারতীয় দলের লক্ষ্য এখন একটাই প্রথমবার বিশ্বজয়। নারী দিবসেই ইতিহাস গড়বে ভারতীয় মহিলা দল। আত্মবিশ্বাসী ১৩০ কোটির দেশ।