অবশেষে সব জল্পনার অবসান। বার্সেলোনা থেকে জুভেন্তাসের পথে পাড়ি দিতে চলেছেন তরুণ ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার আর্থার মেলো। তুরিনের ওল্ড লেডির সাথে তরুণ ব্রাজিলিয়ান কতটা মানিয়ে নিতে পারবেন সে ব্যাপারে দেখা দিয়েছে একাধিক জল্পনা। অপরদিকে জুভে থেকে কাতালুনিয়ান ক্লাবের পথে পা বাড়াবেন বসনিয়া-হার্জেগভেনিয়ার অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার মিরেলাম পিজানিক। বসনিয়া-হার্জেগভেনিয়ার দ্বিতীয় ফুটবলার হিসাবে বার্সায় যোগ দিলেন তিনি। এর আগে আর এক বসনিয়ান মিডফিল্ডার মেহ কদ্র বার্সার হয়ে ৩২ টি ম্যাচ খেলে ৯ গোল করেছিলেন। পরের মরশুমে মেসি, গ্রিজম্যান-দের সাথে মাঠে নামবেন তিনি। 

আরও পড়ুনঃ৩০ বছর পর চ্যাম্পিয়ন হয়েও শাস্তির মুখে লিভারপুল দল

আরও পড়ুনঃফের কি তাহলে অলিম্পিকের আকাশে কালো মেঘ,অশনি সংকেত এক সমীক্ষায়

৭২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা থেকে জুভেতে আসছে আর্থার মেলো। পিজানিককে কিনতে বার্সা খরচ করেছে ৬০ মিলিয়ন ইউরো। ২০১৬ তে রোমা থেকে যোগ দেওয়ার পর জুভের হয়ে ধারাবাহিক ভাবে পারফরম্যান্স করে গেছেন তিনি। বয়সে পিজানিকের থেকে অনেকটাই ছোট আর্থার। সম্ভাবনাময় এই তরুণ কে একসময় ভবিষ্যতের জাভি আখ্যা দেওয়া হয়েছিল। পাসিং দক্ষতার দিক দিয়ে দেখলে আর্থার এবং পিজানিক দুজনেই নিখুঁত। দুজনেই শতকরা ৯০ টিরও বেশি পাস সঠিকভাবে দিয়ে থাকেন ম্যাচে। বল হারানোর বদনাম তাদের কেউ দিতে পারবে না। চলতি মরশুমে ৪ টি গোল এবং ৪ টি গোলে সহায়তা করেছেন আর্থার। সেদিক দিয়ে দেখলে আর্থারের চেয়ে অনেক বেশি সময় খেলে পিজানিক করেছেন ৩ টি গোল। ২ টি গোলের ক্ষেত্রে সহায়তা করেছেন। রক্ষণাত্মক দৃষ্টিভঙ্গি গিয়ে দেখলে শরীর কাজে লাগিয়ে বল দখলে অনেক এগিয়ে আর্থার। কিন্তু পিজানিক সেই ঘাটতি পুষিয়ে নেয় চতুর পজিশনিং এর সাহায্যে বিপক্ষ খেলোয়াড়দের পাস খেলার সময় সেগুলি কেটে বল দখল করে। তবে নিজ নিজ নতুন ক্লাবে তারা কিরকম খেলেন সেই উওর সময়ই দেবে।

আরও পড়ুনঃকরোনা আক্রান্ত অবস্থাতেই খুনের হুমকি পেলেন নোভাক জোকোভিচ