আইলিগে ঘরের মাঠে প্রথম জয় তুলে নিল ইস্টবেঙ্গল। শনিবার কল্যাণীর মাঠে ডগলাসের ট্রাউ এফসিকে ২-১ গোলপে হারিয়ে আইলিগের শীর্ষে উঠে এলে আলেহান্দ্রোর দল। নির্বাসিত থাকায় এই ম্যাচে মাঠে নামতে পারেননি দলের প্রধান ভরসা হাইমি স্যান্টোস কোলাডো। কিন্তু খেলার শুরু থেকেই ডগলাসের দলের বিরুদ্ধে অক্রমণের রাস্তায়া হাঁটে ইস্টবেঙ্গল। খেলার ১৭ মিনিটে হেডে গোল করে ইস্টবেঙ্গলকে এগিয়ে দেন এসপাদা। কিন্তু গোল করার পর লাল হলুদের খেলা যেন একটি ছন্দ হারায়। সেই সুযোগ নিয়ে খেলার ফিরে আসার চেষ্টা করে ডগলাসের ট্রাউ। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে গোল শোধ করে দেয় তারা। দীপক দেবরানীর গোলে সমতায় ফেরে ট্রাউ। 

 

 

আরও পড়ুন - আবার অন্দোলনের হুঁশিয়ারি কাতালুনিয়ার, এল ক্লাসিকোর নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন

নেরোকার বিরুদ্ধে আগের ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলের খেলার মূল ছন্দটা ছিল দুই উইংয়ে। একদিকে কোলাডো  অন্যদিকে হুয়ান মেরা গঞ্জালেজ। কিন্তু শনিবার কোলাডো না থাকায় আক্রমণের ঝাঁজ একটু হলেও কমে যায় লাল হলুদের। দ্বিতীয়ার্ধে খেলায় দাপট দেখানোর চেষ্টা করেছিল ডগলাসের দল। বল পজেশনেও এগিয়ে ছিল তারা। অনেকেই যখন ধরে নিয়েছেন ঘরের মাঠে আবার একটা ড্রয়ের পথে হাঁটতে হবে দলকে তখনই স্বস্তি এনে দিলেন স্টপার মার্তি ক্রসপি। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে এসপাদা হেড করেছিলেন, সেই বলই জালে জড়িয়ে দেন মার্তি। ৮৯ মিনিটে গোল খেয়ে সেটা আর শোধ করতে পারেনি ট্রাউ এফসি। আইলিগের শুরুতে কল্যাণীর মাঠে রিয়াল কাশ্মীরের বিরুদ্ধে ম্যাচে পিছিয়ে থেকে ড্র করেছিল ইস্টবেঙ্গল। তারপর শনিবার দ্বিতীয় হোম ম্যাচে মাঠে নেমেছিল তারা। আর এবার পুরো তিন পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়ল আলেহান্দ্রোর দল। 

 

 

আরও পড়ুন - সুপ্রিম রায়ের অপেক্ষায় বোর্ড, আরও একমাস দায়িত্বে থাকছেন এমএসকে প্রসাদ

শনিবার এই জয়ের ফলে চার ম্যাচে আট পয়েন্ট লাল হলুদের । এখন লিগ শীর্ষে আছে তারা। কিন্তু চার্চিল ব্রাদার্স ও গোকুলাম এফসি দুটি করে ম্যাচ খেলে ছয় পয়েন্ট তুলে রেখেছে। রবিবার চার্চিল ব্রাদার্সের সঙ্গে রিয়াল কাশ্মীরের খেলা থাকলেও সেটা খারাপ আবহাওয়ার জন্য বাতিল হয়েছে। সোমবার মোহনবাগানের বিরুদ্ধে নামবে গোকুলাম। কিভু দল যদি কেরলের ক্লাবকে আটকে দিতে পারে তাহলে লিগ শীর্ষে থেকে যাবে ইস্টবেঙ্গল। শনিবারের এই ম্যাচর পর আগামী রবিবার ডার্বি খেলতে নামবে লাল হলুদ ব্রিগেড। ভারতীয় ফুটবলের সব থেকে বড় ম্যাচ নিয়ে শনিবারের জয়ের পর থেকেই উন্মাদনা তৈরি হয়েছে ইস্টবেঙ্গল সমর্থদের মধ্যে। এখন দেখার কোলাডো ডার্বিতে মাঠে নামতে পারেন কি না। 

আরও পড়ুন - তিন মাস পর একদিনের ক্রিকেটে কোহলির দল, লড়াই এবার চেন্নাইতে