খেলাটা ৭০ মিনিটের নয়, ৯০ মিনিটের। বিশ্বকাপের যোগ্যতা নির্নায়ক পর্বের প্রথম ম্যাচে দুরন্ত ফুটবল খেলেও শেষ দশ মিনিটে ধাক্কা খায় ভারতের অভিযান। শেষ দশ মিনিটে জোড়া গোল খেতে হয় গুরপ্রীতকে। ম্যাচ শেষে আফসোস যাচ্ছে না ভারতীয় দলের ক্রোট কোচের। ম্যাচ শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে তাই তাঁর মুখ থেকে বেড়িয়ে এল এই কথাটা, ‘খেলাটা ৭০ মিনিটের নয়, খেলাটা ৯০ মিনিটের।’  আসলে গোটা ম্যাচে দল ভাল ফুটবল খেলে। সুনীলের গোলে এগিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি একাধিক গোলের সুযোগও তৈরি করেন উদান্তারা। কিন্তু দ্বিতীয় গোল তুলে নিতে পারেনি ভারত। আর তাই শেষ দশ মিনিটে জোড়া গোল খেয়ে ম্যাচ থেকে হারিয়ে যেতে হল ভারতকে। দলের ছেলেদের খেলায় খুশি কোচ স্টিমাচ। ওমানের মত কঠিন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তাঁর দল যে ভাবে মাথা উচুঁ করে দাপুটে ফুটবলে খেলেছে, তাতে আশিকদের নিয়ে গর্বিত স্টিমাচ।

এবার ভারকে খেলতে হবে এশিয়া চ্যাম্পিয়ন ও বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ কাতারের বিরুদ্ধে। সব ছেতে কঠিন ম্যাচ। কিন্তু ঘাবরাবার কিছু দেখছেন না স্টিমাচ। বরং ওমান ম্যাচে ভারতীয় দলের ফুটবল আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিচ্ছে স্টিমাচে। তবে ১০ তারিখের ম্যাচের আগে  দুটো বিষয়ে ফোকাস করতে চান ভারতীয় দলের ক্রোয়েশিয়ান কোচ। এক সুযোগ নষ্ট করা চলবে না। ওমান ম্যাচে একিধক সুযোগ নষ্ট করেছেন উদান্তারা। কোচ মনে করেন, ওমান ম্যাচে প্রথমার্ধেই দল জয়ের রাস্তা তৈরি করে ফেলতে পারত। কিন্তু গোল নষ্ট করায় সেটা হয়নি। কাতার ম্যাচে এত সুযোগ আসবে না। তাই যা সুযোগ আসবে সেটাকেই কাজে লাগাতে হবে। মত স্টিমাচের। দ্বিতীয়ত গোল করার ক্ষেত্রে সুনীল নির্ভরতা কাটাতে হবে। স্টিমাচের পর্যবেক্ষণ গোলের জন্য দলকে বারবার সুনীলের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে। ভাল খেলার পাশাপাশি গোলের করার তাগিদ দেখাতে হবে উদান্তা আশিকদের। 

বৃহস্পতিবার ঘরের মাঠে প্রথম ম্যাচ খেলার পর এবার ভারতীয় দল উড়ে যাবে কাতারে। দশ তারিখ কাতারের বিরদ্ধে খেলা ব্লু টাইগার্সদের। কাতার এশিয়া চ্যাম্পিয়ন বলে তাদের বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছেন না ইগর। বরং ওমান ম্যাচে যে প্রথম এগারো নামিয়েছিলেন তার থেকে কিছু পরিবর্তনের আভাসও দিয়ে রাখেলন।  কিন্তু গুয়াহাটির সাংবাদিক সম্মেলন ছাড়ার আগে একটা বিষয় পরিস্কার করে দিয়েছেন ইগার। প্রতিপক্ষ যেই হোক না কেন, দল জেতার জন্যই মাঠে নামবে।