বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে ওমানের বিরুদ্ধে এগিয়ে থেকেও হারতে হয়েছিল। শেষ দশ মিনিটে ভারতকে দু’গোল দিয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে গিয়েছিল ওমান। সেদিন গুয়াহাটিতে ম্যাচের শেষ দিকে এসে ধাক্কা খেতে হয়েছিল সুনীলের দলকে। ম্যাচের পর ভারতীয় কোচ ইগর স্টিমাচ বলেছিলেন, ফুটবলারদের বুঝতে হবে খেলাটা ৭০ মিনিটের নয়, ৯০ মিনিটের। মঙ্গলবার রাতে ভারতীয় দলের ফুটবলাররে যখন কাতারের আক্রমণের ঝড় সামলে দূর্গ অক্ষত রেখেছিলেন, তখন সবার মনেই একটা ভয়, শেষ দশ মিনিটে আবার কিছু একটা হবে না তো? নাহ হয়নি।  আদিল খান, সন্দেশ ঝিঙ্গনরা একের পর এক আক্রমণ আটকে দিয়েছেন, আর তাদের কড়া মার্কিংয়ের ফাঁক গলে যে বল গুলো গোলের দিকে এগিয়েছিল, সেগুলিকেও অন্য পথ দেখিয়ে দেন ভারতীয় গোলকিপার গুরপ্রীত সিং সান্ধু।  এশিয়ার সেরা দল ভারতের বিরুদ্ধে গোলের দরজা খুলতে পারেনি। পাশাপাশি সুনীলকে ছাড়াও উদান্তা, শাহালরা বেশ কয়েকটি সুযোগও তৈরি করে ফেলেছিলেন। স্টিমাচের দল কাতারের সঙ্গে ড্র করে স্বভাবতেই খুশি। ওমানের বিরুদ্ধে প্রথম দিকের ফুটবল বা কাতারের বিরুদ্ধে ব্লু টাইগার্সদের ডিফেন্স বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপের যোগ্যতা নির্নায়ক পর্বে ভারতীয় দলকে অনেকটা আত্মবিশ্বাস দেবে। 

দলের খেলায় যে তিনি খুশি সেটা ম্যাচ শেষে জানাতে ভোলেননি দোহায় ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়া গুরপ্রীত। অনেক ফুটবল বিশেষজ্ঞই মনে করেন মঙ্গলবারই জীবনের সেরা ম্যাচটা খেললেন পাঞ্জাব তনয়, গোটা দেশ তাঁকে নিয়ে ধন্য ধন্য করছে। এই অবস্থায়, গুরপ্রীত কিন্তু শান্ত।  দোহার মাঠে কাতারকে আটকে দেওয়ার কৃতিত্ব একা নিজে নিতে চান না তিনি। বলছেন, ‘দলের খেলায় আমি গর্বিত, টিম গেমে ভর করেই এই ফলাফল। সবাই নিজেদের সেরা উজার করে দেওয়াতেই আমরা মাথা উচুঁ করে ড্রেসিংরুমে ফিরতে পেরেছি।  আমরা দুটো খুব ভাল দলের বিরুদ্ধে খেলেছি, এবং ভাল খেলেছি। এই দুই ম্যাচ থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস আমাদের আগামী দিনে অনেকটাই সাহয্য করবে।’ অসুস্থতার জন্য কাতারে বিরুদ্ধে খেলতে পারেননি অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী। হোটেলের ঘরে বসেই খেলা দেখেন তিনি। ম্যাচ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই টুইট করেন সুনীল। অধিনায়কের মতে তিনি কতাটা গর্বিত সেটা তিনি বলে বোঝাতে পারবেন না। 

প্রথম ম্যাচে ওমানের কাছে হারের পর কাতারের বিরুদ্ধে গোল শূন্য ড্র ব্লু টাইগার্সদের এক পয়েন্ট এনে দিয়েছে। গ্রুপে এই মূহুর্তে চতুর্থ স্থানে আছে ভারত। পরের পর্বে যাওয়ার আশা কমে গেলেও একটা ক্ষীণ আশা আছে, সেটাকে সঙ্গে নিয়েই অক্টোবরের ১৫ তারিখ ঘরের মাঠে প্রতিবেশী বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নামবে ব্লু টাইগার্সরা।