নাগরিকত্ব আইন নিয়ে লাগাতার বিক্ষোভ চলছে রাজ্যে। আর তারই প্রভাব পরল আইলিগে। আগামী রবিবার হওয়ার কথা ছিল মোহনবাগান ইস্টবেঙ্গলের কলকাতা ডার্বি। কিন্তু সেটা আপাতত হচ্ছে না। সূচি পরিবর্তন করে নতুন ডার্বির তারিখ জানাবে ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন। বুধবার বিধাননগর কমিশনারেটের ডেপুটি কমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন সবুজ মেরুন কর্তার। রবিবারের বড় ম্যাচের আয়োজক তারা। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ছোট করে ডার্বি আয়োজন করলে তাঁদের পক্ষে নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব। নইলে তারা পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে পারবেন না। কিন্তু বাগান কর্তা বাংলার ফুটবল আবেগের ম্যাচ ছোট করে আয়োজন করতে রাজি ছিলেন না। সেটা নিয়েই চিঠি দেওয়া হয় ফেডারেশনকে। আর্জি  জানানো হয় ডার্বি পিছিয়ে দেওয়ার। পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে সেই দাবি মেনে নিয়েছে সর্ব ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশেন। সূচি পরিবর্তন করে নতুন ডার্বির তারিখ জানাবে ফেডারেশন। 

 

 

আরও পড়ুন - বৃহস্পতিবার শহরে আইপিএল নিলাম, ভাগ্য নির্ধারণ ৩৩২ ক্রিকেটারের

সল্টলেক স্টেডিয়ামে যে কোনও ম্যাচের নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকে বিধাননগর কমিশনারেটের ওপর। ডার্বি ম্যাচ পরিচালনার সময় নিজেদের পুলিশের পাশাপাশি পার্শবর্তী উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পুলিশের কর্মীদের ডার্বির সময় নিয়ে আসা হয়। কিন্তু নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ হচ্ছে, তাই জেলার পুলিশ কর্মীদের রবিবার নিয়ে আসা সম্ভব নয়। এই অবস্থায় ডার্বি ম্যাচে কম দর্শক মাঠে রেখে বড় ম্যাচ আয়োজনের অনুমতি দিতে চেয়েছিল বিধান নদর পুলিশ। কিন্তু ডার্বির মত ম্যাচই দুই বড় ক্লাবের কাছে যেমন একটা আবেগ, তেমনই থাকছে টিকিট বিক্রি থেকে আয়ের উপায়টাও। সেটাকে কাট ছাঁট করা সম্ভব নয় মোহনবাগানের পক্ষে। তাই পুলিশ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক সেরে মোহনবাগান কর্তারা ফেডারেশনকে চিঠি লিখে গোটা পরিস্থিতির কথা জানিয়ে দেন। 

 

 

আরও পড়ুন - মধ্যরাতে মহারণ, মরসুমের প্রথম এল ক্লাসিকো নিয়ে উন্মাদনা ফুটবল বিশ্বে

ফেডারশেনও গোটা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে মোহনবাগানের আর্জি মেনে নিয়েছে। ডার্বি ম্যাচ পিছিয়ে যাওয়ায় .কিছুটা হলেও স্বস্তি পেয়েছেন দুই বড় দল কোচই। কারণ ইস্টবেঙ্গল কোচ যেমন কোলাডোকে পেয়ে যাবেন, তেমনই মোহনবাগান কোচের কাছে চলে আসতে পারে নতুন স্ট্রাইকার। সব দিক দেখে ফেডারেশন এবার নতুন ডার্বির তারিখ জানাবে। কিন্তু ইতিমধ্যেই অনেক দর্শক অন লাইনে ডার্বির টিকিট কিনে নিয়েছেন। আয়োজক মোহনবাগানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যারা টিকিট কেটেছেন তারা এই বুকিং স্লিপ দেখিয়েই ডার্বির টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। নতুন করে করে আর টিকিট টাকতে হবে না। জানুয়ারি মাসে ডার্বি হতে পারে বসে আশা করছে ফুটবল মহল। 

আরও পড়ুন - চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডে সিটির সামনে রিয়াল, লিভারপুলের সামনে অ্যাটলেটিকো