বিশ্বের যে কটি দেশের করোনা ভাইরাসের প্রকোপ সবথেকে বেশি দেখা গিয়েছে তাদের মধ্যে স্পেন অন্যতম। প্রতিদিন স্পেনে লাফিয়ে লাফিয়ে ফিরছে কোভিড ১৯-এ আক্রান্তের সংখ্যা। একইভাবে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। পরিস্থিতি সামাল দিতে স্পেনেও চলছে লকডাউন। করোনা ভাইরাস মহামারীর জেরে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতোই স্পেনেও বন্ধ রয়েছে সমস্ত ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট। বন্ধ লা লিগা, কোপা দেল রে সহ একাধিক প্রথম শ্রেণির ফুটবল প্রতিযোগিতা। গত ১২ মার্চ থেকে স্প্যানিশ লিগ বন্ধ। মাঝে রটে গিয়েছিল, স্পেনে হয়তো খেলা শুরু করা হতে পারে। যদিও কতিপয় ফুটবলার ক্ষোভ উগরে দেন। ক্ষুব্ধ ফুটবলারদের বক্তব্য ছিল, পরীক্ষামূলকভাবে লিগের খেলা ফের চালু করলে সাধারণ মানুষের মনে ভীতি সঞ্চার ঘটতে বাধ্য। তখন ব্যাপারটা হিতে-বিপরীত হবে। কিন্তু দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সালভাদোর ইলা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, যদি ফুটবল ফের চালু করা হয় তাহলে ব্যাপারটা অবিবেচকের পর্যায়ে পড়বে। ফলে প্লেয়ার ও দেশের জনগণের কথা ভেবে এই গ্রীষ্মে হয়তো বল পায়ে আর দেখা যাবে লিও মেসি, লুই সুয়ারেজদের। বিশ্বজুড়ে ফুটবল প্রেমীদের আশাহত করে এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সালভাদোর ইলা।

আরও পড়ুনঃলকডাউনের মধ্যেও দল গোছাতে তৎপর ইষ্টবেঙ্গল,সই করালো শেহনাজ সিং, বিকাশ জাইরু, কেভিন লোবোকে

স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বক্তব্য,'যদি আমি বলি, গ্রীষ্মের আগে ফের পেশাদার ফুটবল দেশে চালু হবে তাহলে অবিবেচকের মতো কথা হবে। পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর রাখা হচ্ছে। যাবতীয় বিধিনিষেধ মেনে আগামী দিনেও চলতে হবে। তারপর অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।'। স্প্যানিশ লিগ কর্তৃপক্ষ আগেই জানিয়ে ছিল, মে মাসের আগে খেলা শুরু করা সম্ভব নয়। একই সুর শোনা গিয়েছিল মাদ্রিদ মেয়রের মুখেও। ইতিমধ্যেই শোনা গিয়েছে, স্প্যানিশ লিগের খেলা চালু করা হলে ফুটবলারদের প্রতিনিয়ত পরীক্ষা করা হবে। সেই জল্পনাতেও জল ঢেলে দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তাঁর মতে,'স্থানীয় প্রশাসন পুরো ব্যপারটা দেখভাল করছে। তারাই ঠিক করবে কী ধরনের টেস্ট চালু করা হবে। প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই একই ফল প্রযোজ্য। আলাদা করে কেউ প্রাধান্য পাবে না।'

আরও পড়ুনঃমহামারীর পর 'ফুটসল' দিয়ে ভারতে ফিরতে চলেছে ফুটবল

আরও পড়ুনঃপরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে বাতিল হতে পারে অলিম্পিক,আশঙ্কা প্রকাশ অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্টের

স্পেনের মতই করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেশি ইতালি  ও ব্রিটেনে। কিন্তু এই দুই দেশে ফুটবল শুরু করতে সবরকম ব্যবস্থা বা তোরজোর শুরু করে দিয়েছে। মে অথবা জুন মাস থেকে ফুটবল শুরু হতে পারে এই দুই দেশেষ কিন্তু অন্য পথে হাঁটল স্পেন। পরিস্থিতি উপর নজর রাখার পাশাপাশি প্লেয়ার ও জনসাধারণের স্বাস্থ্য ফুটবলের থেকে বেশি প্রাধান্য পেয়েছে স্পেস সরকারের কাছে। ফলে ফের কবে বল পায়ে কবে দেখা যাবে মেসি, সুয়ারেজ, গ্রীজম্যানদের সেই উত্তর অজানা সকলের।