'দাদার কীর্তি' থেকে ভুবনেশ্বরের জেল, তাপসের জীবন যেন সিনেমার মতোই

First Published 18, Feb 2020, 10:17 AM IST

প্রয়াত অভিনেতা ও প্রাক্তন সাংসদ তাপস পাল। বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা মঙ্গলবার ভোরে মুম্বইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১ বছর। মুম্বই বিমানবন্দরে বুকে ব্যথা অনুভব করেন। তাকে জুহুর হলিক্রস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ভোর ৩:৩৫ মিনিটে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় প্রাক্তন সাংসদের। ১৯৮৪তে হীরেন নাগের ছবিতে তাঁর বিপরীতে নায়িকা ছিলেন মাধুরী দীক্ষিত। রাখি গুলজারের সঙ্গেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে।কলকাতায় তরুণ মজুমদারের ডাকে মুম্বই থেকে কলকাতা ফিরে এসে দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে অভিনয় করেন 'ভালবাসা ভালবাসা' ছবিতে। ১৯৮৫-তে এই ছবি বক্স অফিসে বিপুল সাফল্য এনে দেয়।

প্রয়াত অভিনেতা ও প্রাক্তন সাংসদ তাপস পাল। বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা মঙ্গলবার ভোরে মুম্বইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১ বছর।

প্রয়াত অভিনেতা ও প্রাক্তন সাংসদ তাপস পাল। বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা মঙ্গলবার ভোরে মুম্বইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১ বছর।

১৯৮৪তে হীরেন নাগের ছবিতে তাঁর বিপরীতে নায়িকা ছিলেন মাধুরী দীক্ষিত। রাখি গুলজারের সঙ্গেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। কিন্তু তাপস পাল পুরোপুরি বাংলার অভিনেতা।

১৯৮৪তে হীরেন নাগের ছবিতে তাঁর বিপরীতে নায়িকা ছিলেন মাধুরী দীক্ষিত। রাখি গুলজারের সঙ্গেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। কিন্তু তাপস পাল পুরোপুরি বাংলার অভিনেতা।

কলকাতায় তরুণ মজুমদারের ডাকে মুম্বই থেকে কলকাতা ফিরে এসে দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে অভিনয় করেন 'ভালবাসা ভালবাসা' ছবিতে। ১৯৮৫-তে এই ছবি বক্স অফিসে বিপুল সাফল্য এনে দেয়।

কলকাতায় তরুণ মজুমদারের ডাকে মুম্বই থেকে কলকাতা ফিরে এসে দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে অভিনয় করেন 'ভালবাসা ভালবাসা' ছবিতে। ১৯৮৫-তে এই ছবি বক্স অফিসে বিপুল সাফল্য এনে দেয়।

বাংলা ছবিতে তৈরি হয় দেবশ্রী-তাপস জুটি। একে একে বাড়তে থাকে ছবির তালিকা। 'অর্পণ', 'সুরের সাথী', 'সুরের আকাশে', 'নয়নমণি', 'চোখের আলোয়', 'তবু মনে রেখো'।

বাংলা ছবিতে তৈরি হয় দেবশ্রী-তাপস জুটি। একে একে বাড়তে থাকে ছবির তালিকা। 'অর্পণ', 'সুরের সাথী', 'সুরের আকাশে', 'নয়নমণি', 'চোখের আলোয়', 'তবু মনে রেখো'।

২০১৬ সালের শেষদিকে রোজভ্যালি কাণ্ডে যুক্ত থাকার অভিযোগও ওঠে তাপস পালের বিরুদ্ধে। তাঁকে গ্রেফতারও করে সিবিআই। দীর্ঘদিন জেলে থাকার পর তিনি জামিন পান।

২০১৬ সালের শেষদিকে রোজভ্যালি কাণ্ডে যুক্ত থাকার অভিযোগও ওঠে তাপস পালের বিরুদ্ধে। তাঁকে গ্রেফতারও করে সিবিআই। দীর্ঘদিন জেলে থাকার পর তিনি জামিন পান।

২০০১ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের হাত ধরে সক্রিয় রাজনীতিতে পা রাখেন তিনি।  ২০০৯ সালে মোড় ঘুরে যায় তাপস পালের অভিনেতা জীবনে। ওই বছর রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের টিকিটে কৃষ্ণনগর থেকে জিতে সাংসদ হন তাপস পাল।

২০০১ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের হাত ধরে সক্রিয় রাজনীতিতে পা রাখেন তিনি। ২০০৯ সালে মোড় ঘুরে যায় তাপস পালের অভিনেতা জীবনে। ওই বছর রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের টিকিটে কৃষ্ণনগর থেকে জিতে সাংসদ হন তাপস পাল।

তপন সিংহ থেকে অঞ্জন চৌধুরী, অরবিন্দ মুখোপাধ্যায় থেকে তরুণ মজুমদার আশি থেকে নব্বই দশকের বাংলা চলচ্চিত্রের প্রেম-প্রতিবাদ সমস্ত আবেগের অন্য়তম সেই অভিনেতা, তাপস পাল।

তপন সিংহ থেকে অঞ্জন চৌধুরী, অরবিন্দ মুখোপাধ্যায় থেকে তরুণ মজুমদার আশি থেকে নব্বই দশকের বাংলা চলচ্চিত্রের প্রেম-প্রতিবাদ সমস্ত আবেগের অন্য়তম সেই অভিনেতা, তাপস পাল।

'গুরুদক্ষিণা', 'বলিদান', 'কড়ি দিয়ে কিনলাম'র মতো একের পর এক সুপারহিট ছবি ছিল তাঁর ঝুলিতে। একটা সময় বাংলা ছবির ইন্ডাস্ট্রিতে প্রসেনজিতের সঙ্গে তাঁর  টক্কর ছিল।

'গুরুদক্ষিণা', 'বলিদান', 'কড়ি দিয়ে কিনলাম'র মতো একের পর এক সুপারহিট ছবি ছিল তাঁর ঝুলিতে। একটা সময় বাংলা ছবির ইন্ডাস্ট্রিতে প্রসেনজিতের সঙ্গে তাঁর টক্কর ছিল।

'গুরুদক্ষিণা', 'বলিদান', 'কড়ি দিয়ে কিনলাম'র মতো একের পর এক সুপারহিট ছবি ছিল তাঁর ঝুলিতে। একটা সময় বাংলা ছবির ইন্ডাস্ট্রিতে প্রসেনজিতের সঙ্গে তাঁর কড়া টক্কর ছিল।

'গুরুদক্ষিণা', 'বলিদান', 'কড়ি দিয়ে কিনলাম'র মতো একের পর এক সুপারহিট ছবি ছিল তাঁর ঝুলিতে। একটা সময় বাংলা ছবির ইন্ডাস্ট্রিতে প্রসেনজিতের সঙ্গে তাঁর কড়া টক্কর ছিল।

শেষ পর্যন্ত অভিনয়ের চেনা জগতেও ফিরতে চেয়েছিলেন তাপস পাল। কিন্তু অসুস্থতা তাঁকে সরিয়ে নিয়ে গেল চিরকালের মত।

শেষ পর্যন্ত অভিনয়ের চেনা জগতেও ফিরতে চেয়েছিলেন তাপস পাল। কিন্তু অসুস্থতা তাঁকে সরিয়ে নিয়ে গেল চিরকালের মত।

loader