'নেশা থেকে মুক্তি পেতে পাশে থাকবে কলকাতা পুলিশ', আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবসে দেখুন লালবাজারের ছবি

First Published 26, Jun 2020, 3:19 PM

  বিশ্ব জুড়ে আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবস পালিত হচ্ছে। ২৬ জুন আন্তর্জাতিক মাদক সেবন এবং পাচার বিরোধী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। এই দিনটি পালন করার প্রধান উদ্দেশ্য, মাদক সেবন ও পাচারের মারাত্মক প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং তা প্রতিরোধ করা। শুক্রবার লালবাজারে কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবসে অনুষ্ঠানের সূচনা করেছেন।   তিনি জানিয়েছেন, কলকাতায় করোনা পরিস্থিতিতে তেমন ভাবে কলকাতা পুলিশের তরফে ড্রাগ দিবস পালন করা সম্ভব হচ্ছে না। তবুও সাধারণ মানুষের জন্য কলকাতা পুলিশের তরফে আবেদন নেশা থেকে মুক্তি পেতে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

<p> <br />
 ২৬ জুন আন্তর্জাতিক মাদক সেবন এবং পাচার বিরোধী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। এই দিনটি পালন করার প্রধান উদ্দেশ্য, মাদক সেবন ও পাচারের মারাত্মক প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং তা প্রতিরোধ করা। </p>

 
 ২৬ জুন আন্তর্জাতিক মাদক সেবন এবং পাচার বিরোধী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। এই দিনটি পালন করার প্রধান উদ্দেশ্য, মাদক সেবন ও পাচারের মারাত্মক প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং তা প্রতিরোধ করা। 

<p> বিশ্ব জুড়ে আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবস পালিত হচ্ছে। শুক্রবার লালবাজারে কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবসে অনুষ্ঠানের সূচনা করেছেন।  </p>

 বিশ্ব জুড়ে আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবস পালিত হচ্ছে। শুক্রবার লালবাজারে কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা আন্তর্জাতিক ড্রাগ দিবসে অনুষ্ঠানের সূচনা করেছেন।  

<p>কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা জানিয়েছেন, কলকাতায় করোনা পরিস্থিতিতে তেমন ভাবে কলকাতা পুলিশের তরফে ড্রাগ দিবস পালন করা সম্ভব হচ্ছে না।<br />
 </p>

কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা জানিয়েছেন, কলকাতায় করোনা পরিস্থিতিতে তেমন ভাবে কলকাতা পুলিশের তরফে ড্রাগ দিবস পালন করা সম্ভব হচ্ছে না।
 

<p> তবুও সাধারণ মানুষের জন্য কলকাতা পুলিশের তরফে আবেদন নেশা থেকে মুক্তি পেতে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছেন সিপি ।<br />
 </p>

 তবুও সাধারণ মানুষের জন্য কলকাতা পুলিশের তরফে আবেদন নেশা থেকে মুক্তি পেতে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছেন সিপি ।
 

<p><br />
উল্লেখ্য, কলকাতা পুলিশের উদ্যোগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী মাস থেকে 'শুদ্ধি' নামে একটি বিশেষ পুনর্বাসন প্রকল্প চালু হয়।<br />
 </p>


উল্লেখ্য, কলকাতা পুলিশের উদ্যোগে ২০১৮ সালের জানুয়ারী মাস থেকে 'শুদ্ধি' নামে একটি বিশেষ পুনর্বাসন প্রকল্প চালু হয়।
 

<p>'শুদ্ধি'  প্রকল্পটির লক্ষ্য মূলত দুটি। গভীরভাবে মাদকাসক্ত অপরাধীদের শাস্তি না দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা, এবং এই প্রচেষ্টায় সর্বস্তরের সাধারণ মানুষকে সামিল করা ।<br />
 </p>

'শুদ্ধি'  প্রকল্পটির লক্ষ্য মূলত দুটি। গভীরভাবে মাদকাসক্ত অপরাধীদের শাস্তি না দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা, এবং এই প্রচেষ্টায় সর্বস্তরের সাধারণ মানুষকে সামিল করা ।
 

loader