করোনা সংক্রমণ থেকে কীভাবে দূরে থাকবেন, হাতের কাছে রাখুন এই চারটি জিনিস

First Published 23, Mar 2020, 6:33 PM IST

করোনাভাইরাস নিয়ে চারিদিকে আতঙ্কের পরিবেশ। ভারতে লক ডাউন-এর ঘোষণা আতঙ্ক আরও বাড়িয়েছে। সকলেই বুঝে পাচ্ছেন না সুরক্ষা পাওয়ার উপায়গুলো। এখানে রইল এমনকিছু দিশা যা আপনাকে সাহায্য করবে।  

ডেটল ও জলের মিশ্রণে বিটাডাইন। বাজার থেকে কিনে আনুন ডেটলের বড় কন্টেনার। এরপর স্প্রেওয়ালা কন্টেনারে ডেটল অর্ধেকটা ভরে দিন। এরপর তাতে জল মেশান এবং কন্টেনারটাকে ভর্তি করুন। শেষে দুই ছিপি বিটাডাউন মিশিয়ে দিন। এরপর ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। তৈরি আপনার ঘরোয়া স্যানিটাইজার। হাতে পায়ে লাগাতে পারেন। বাইরে থেকে কেউ এলে তার হাতেও স্প্রে করে দিন এবং হাতটা ধুয়ে নিতে বলুন। এতে ভাইরাস অনেকটা নিয়ন্ত্রিত হবে।

ডেটল ও জলের মিশ্রণে বিটাডাইন। বাজার থেকে কিনে আনুন ডেটলের বড় কন্টেনার। এরপর স্প্রেওয়ালা কন্টেনারে ডেটল অর্ধেকটা ভরে দিন। এরপর তাতে জল মেশান এবং কন্টেনারটাকে ভর্তি করুন। শেষে দুই ছিপি বিটাডাউন মিশিয়ে দিন। এরপর ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। তৈরি আপনার ঘরোয়া স্যানিটাইজার। হাতে পায়ে লাগাতে পারেন। বাইরে থেকে কেউ এলে তার হাতেও স্প্রে করে দিন এবং হাতটা ধুয়ে নিতে বলুন। এতে ভাইরাস অনেকটা নিয়ন্ত্রিত হবে।

কাঠ, স্টিল, প্লাস্টিক জাতীয় জিনিসের উপরে করোনাভাইরাস অনেকক্ষণ থাকে। এই খান থেকে যে কোনও সময়ে সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকছে যদি কোনওভাবে বাড়ির এই জিনিসগুলোতে করোনাভাইরাস বাসা বেঁধে থাকে। এই সম্ভাবনাকে নির্মূল করতে অব্যর্থ দাওয়াই ব্লিচিং পাইডারের মিশ্রণ। যে কোনও হার্ডওয়ারের দোকান থেকে এক্সপায়ার্ড না হওয়া ব্লিচিং পাইডার বা সলিউশন কিনুন। বাড়িতে একটি স্প্রেওয়ালা বোতলে জল ভর্তি করুন এবং তাতে তিন চামচ ব্লিচিং ফেলে দিন। এরপর ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। যখন-ই সময় পাবেন দরজার হ্যান্ডেল থেকে শুরু করে টেবিল, চেয়ার, মেঝে রান্নাঘরের স্ল্যাব, কাঠের ওয়ার্ডড্রোব-এ এই ব্লিচিং সলিউশন স্প্রে করে মুছে নিন। এতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা কমবে।

কাঠ, স্টিল, প্লাস্টিক জাতীয় জিনিসের উপরে করোনাভাইরাস অনেকক্ষণ থাকে। এই খান থেকে যে কোনও সময়ে সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকছে যদি কোনওভাবে বাড়ির এই জিনিসগুলোতে করোনাভাইরাস বাসা বেঁধে থাকে। এই সম্ভাবনাকে নির্মূল করতে অব্যর্থ দাওয়াই ব্লিচিং পাইডারের মিশ্রণ। যে কোনও হার্ডওয়ারের দোকান থেকে এক্সপায়ার্ড না হওয়া ব্লিচিং পাইডার বা সলিউশন কিনুন। বাড়িতে একটি স্প্রেওয়ালা বোতলে জল ভর্তি করুন এবং তাতে তিন চামচ ব্লিচিং ফেলে দিন। এরপর ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। যখন-ই সময় পাবেন দরজার হ্যান্ডেল থেকে শুরু করে টেবিল, চেয়ার, মেঝে রান্নাঘরের স্ল্যাব, কাঠের ওয়ার্ডড্রোব-এ এই ব্লিচিং সলিউশন স্প্রে করে মুছে নিন। এতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা কমবে।

প্রত্যেকের জন্য গামছা বা তোয়ালে আলাদা আলাদা রাখুন। বাথরুম এবং সবখানে টিস্যু পেপার রাখুন। রাখুন লিকুইড সাবান এবং বার সাবান। বাড়িতে এমন কোনও ব্যক্তি সেলফ কোয়ারিন্টাইন-এ থাকলে তাঁর জন্য এই জিনিসগুলি নির্দিষ্ট করে দিন। তাঁর ব্যবহৃত কোনও জিনিস ব্যবহার করবেন না।

প্রত্যেকের জন্য গামছা বা তোয়ালে আলাদা আলাদা রাখুন। বাথরুম এবং সবখানে টিস্যু পেপার রাখুন। রাখুন লিকুইড সাবান এবং বার সাবান। বাড়িতে এমন কোনও ব্যক্তি সেলফ কোয়ারিন্টাইন-এ থাকলে তাঁর জন্য এই জিনিসগুলি নির্দিষ্ট করে দিন। তাঁর ব্যবহৃত কোনও জিনিস ব্যবহার করবেন না।

বাড়ির মধ্যে কোনও ব্যক্তি কোয়ারিন্টাইন-এ থাকলে তার জন্য বাথরুমও আলাদা করুন। এই বাথরুম কেউ ব্যবহার করবেন না। এই ব্যক্তির কোয়ারিন্টাইন-এর সময়সীমা শেষ হলে তাহলে তা সঠিক পদ্ধতিতে ডিসইনফেকটেড করুন মানে ব্লিচিং-এর মিশ্রণ দিয়ে বাথরুম পরিস্কার করা থেকে ডেটল-এর মিশ্রিত লিকুইড দিয়ে বাথরুম ধুয়ে ফেলা। এবং বাথরুমের দেওয়ালও যাতে ধুয়ে-মুছে পরিস্কার করা যায় সেটা করতে হবে।

বাড়ির মধ্যে কোনও ব্যক্তি কোয়ারিন্টাইন-এ থাকলে তার জন্য বাথরুমও আলাদা করুন। এই বাথরুম কেউ ব্যবহার করবেন না। এই ব্যক্তির কোয়ারিন্টাইন-এর সময়সীমা শেষ হলে তাহলে তা সঠিক পদ্ধতিতে ডিসইনফেকটেড করুন মানে ব্লিচিং-এর মিশ্রণ দিয়ে বাথরুম পরিস্কার করা থেকে ডেটল-এর মিশ্রিত লিকুইড দিয়ে বাথরুম ধুয়ে ফেলা। এবং বাথরুমের দেওয়ালও যাতে ধুয়ে-মুছে পরিস্কার করা যায় সেটা করতে হবে।

বাড়িতে ঢোকার মুখে পারলে একটা গামলা রাখুন। তাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ জল, ডেটল এবং বিটাডিন ফেলে দিয়ে রাখুন। বাইরে থেকে কেউ বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করতে চাইলে তাঁকে আগে ওই মিশ্রণে পা চুবিয়ে, ভালো করে তা ধুয়ে ঘরে প্রবেশ করতে বলুন। এছাড়া যখনই ঘরের মেঝে পরিস্কার করবেন তাতে এক চামচ ব্লিচিং ফেলে নিন, এছাড়াও তাতে ডেটল ও ফিনাইল ফেলে নিন।

বাড়িতে ঢোকার মুখে পারলে একটা গামলা রাখুন। তাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ জল, ডেটল এবং বিটাডিন ফেলে দিয়ে রাখুন। বাইরে থেকে কেউ বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করতে চাইলে তাঁকে আগে ওই মিশ্রণে পা চুবিয়ে, ভালো করে তা ধুয়ে ঘরে প্রবেশ করতে বলুন। এছাড়া যখনই ঘরের মেঝে পরিস্কার করবেন তাতে এক চামচ ব্লিচিং ফেলে নিন, এছাড়াও তাতে ডেটল ও ফিনাইল ফেলে নিন।

বাচ্চাদের-কে সামলে রাখুন। সবসময় চেষ্টা করুন যাতে তারা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন এবং ডিসইনফেকট থাকে। বাড়িতে কোয়ারিন্টাইনে কোনও ব্যক্তি থাকলে তার ধারেকাছে বাচ্চাদের ঘেঁষতে দেবেন না।

বাচ্চাদের-কে সামলে রাখুন। সবসময় চেষ্টা করুন যাতে তারা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন এবং ডিসইনফেকট থাকে। বাড়িতে কোয়ারিন্টাইনে কোনও ব্যক্তি থাকলে তার ধারেকাছে বাচ্চাদের ঘেঁষতে দেবেন না।

বয়স্কদের জামা-কাপড় সবসময়ে ডেটলে চুবিয়ে নিয়ে কাঁচুন। পরিস্কার রুমাল ব্যবহার করতে বলুন। ঘরে হাঁটলে স্লিপার ব্যবহার করতে বলুন। স্লিপার যেন প্রতিদিন ব্লিচিং মিশ্রিত জলে ধুয়ে নেওয়া হয়।

বয়স্কদের জামা-কাপড় সবসময়ে ডেটলে চুবিয়ে নিয়ে কাঁচুন। পরিস্কার রুমাল ব্যবহার করতে বলুন। ঘরে হাঁটলে স্লিপার ব্যবহার করতে বলুন। স্লিপার যেন প্রতিদিন ব্লিচিং মিশ্রিত জলে ধুয়ে নেওয়া হয়।

coronavirus

coronavirus

বাজার থেকে প্রচুর পরিমাণে বায়ো-ডিগ্রেবল গারবেজ ব্যাগ নিয়ে আসুন। রোজকার ছাড়া জামাকাপড় এতে ভরে রাখুন। এই ব্যাগ থেকে জামাকাপড় বের করতে হলে হাতে যেন গ্লাসভস থাকে এবং হাত যেন পুরো ঢাকা থাকে। ফাঁকা গারবেজ ব্যাগ-এর মুখ বন্ধ করে তা ডাস্টবিনে ফেলে  দিন। এছাড়া বাথরুমের নোংরা ফেলতে এই বায়ো-ডিগ্রেবল গারবেজ ব্যাগ ব্যবহার করুন। বাইরে ফেলে দেওয়ার আগে তার মুখ বালো করে বন্ধ করে দিন।

বাজার থেকে প্রচুর পরিমাণে বায়ো-ডিগ্রেবল গারবেজ ব্যাগ নিয়ে আসুন। রোজকার ছাড়া জামাকাপড় এতে ভরে রাখুন। এই ব্যাগ থেকে জামাকাপড় বের করতে হলে হাতে যেন গ্লাসভস থাকে এবং হাত যেন পুরো ঢাকা থাকে। ফাঁকা গারবেজ ব্যাগ-এর মুখ বন্ধ করে তা ডাস্টবিনে ফেলে দিন। এছাড়া বাথরুমের নোংরা ফেলতে এই বায়ো-ডিগ্রেবল গারবেজ ব্যাগ ব্যবহার করুন। বাইরে ফেলে দেওয়ার আগে তার মুখ বালো করে বন্ধ করে দিন।

বার সাবান একটি অতি প্রয়োজনীয় জিনিস করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে। কোনও গন্ধজাতীয় সাবান নয়, এক্ষেত্রে লাইফবয় জাতীয় সাবান হতে পারে সবচেয়ে ভালো সুরাহা।

বার সাবান একটি অতি প্রয়োজনীয় জিনিস করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে। কোনও গন্ধজাতীয় সাবান নয়, এক্ষেত্রে লাইফবয় জাতীয় সাবান হতে পারে সবচেয়ে ভালো সুরাহা।

loader