বড়দিনে সুস্বাদু কেক পেতে চান, কলকাতার এই সেরা দশ ঠিকানায় হাজির হয়ে যান

First Published Dec 17, 2020, 12:32 PM IST

বড়দিনের কেক মানেই এক ভিন্ন স্বাদের আমেজ। ফ্রুট কেকেি মেতে থাকে এই সময় আট থেকে আশি। আর তাই সেরা কেকের ঠিকানার সন্ধান রইল এবার এশিয়ানেট নিউজ বাংলার পাতায়। 

<p>দ্য বেকরিঃ ধর্মতলা চত্বরে দ্য বেকারি অবস্থিত। ললিত গ্রেট ইস্টার্নের এই আউটলেটে মিলবে অনবদ্য স্বাদের বিভিন্ন ফ্লেভার কেক। ফিউসন কেকের জন্য বিখ্যাত এই দোকান। খোলা থাকে সকালর সাতটা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত।</p>

দ্য বেকরিঃ ধর্মতলা চত্বরে দ্য বেকারি অবস্থিত। ললিত গ্রেট ইস্টার্নের এই আউটলেটে মিলবে অনবদ্য স্বাদের বিভিন্ন ফ্লেভার কেক। ফিউসন কেকের জন্য বিখ্যাত এই দোকান। খোলা থাকে সকালর সাতটা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত।

<p>নাহমসঃ নিউমার্কেট এলাকার বিখ্যাত কেকের দোকান নাহমস। প্রতিবছরই বড়দিন উপলক্ষ্যে এখানে মেমে বিশেষ কেকের সম্ভার। দোকান খোলা থাকে রাত ৯টা পর্যন্ত। কেকের দাম ৬০ টাকা থেকে শুরু।&nbsp;</p>

নাহমসঃ নিউমার্কেট এলাকার বিখ্যাত কেকের দোকান নাহমস। প্রতিবছরই বড়দিন উপলক্ষ্যে এখানে মেমে বিশেষ কেকের সম্ভার। দোকান খোলা থাকে রাত ৯টা পর্যন্ত। কেকের দাম ৬০ টাকা থেকে শুরু। 

<p>ল্যান্ড অব কেকঃ ল্যান্ড অব কেকের দেখা মিলবে বাগুইহাটি চত্বরে। এছাড়াও কলকাতার আরও জায়গায় রয়েছে এদের শাখা। কেক মিলবে ২৫০ টাকা থেকে। স্বাদে গুণে এই কেকের এক কথায় জুরি মেলা ভার।</p>

ল্যান্ড অব কেকঃ ল্যান্ড অব কেকের দেখা মিলবে বাগুইহাটি চত্বরে। এছাড়াও কলকাতার আরও জায়গায় রয়েছে এদের শাখা। কেক মিলবে ২৫০ টাকা থেকে। স্বাদে গুণে এই কেকের এক কথায় জুরি মেলা ভার।

<p>কুকি জারঃ শেক্সপিয়র সরণীর ওপর অবস্থিত এই বেকারি কলকাতার অতি পরিচিত স্থান। বিশেষ বিশেষ দিনে কেকের চাহিদা এই বেকারিতে থাকে তুঙ্গে। কলকাতার একাধিক এলাকাতে রয়েছে এর শাখা।</p>

কুকি জারঃ শেক্সপিয়র সরণীর ওপর অবস্থিত এই বেকারি কলকাতার অতি পরিচিত স্থান। বিশেষ বিশেষ দিনে কেকের চাহিদা এই বেকারিতে থাকে তুঙ্গে। কলকাতার একাধিক এলাকাতে রয়েছে এর শাখা।

<p>ফ্রেঞ্চ লুফঃ অনবদ্য কেকের স্বাদ পেতে হলে একবার টেস্ট করে দেখতেই হবে দ্য ফ্রেঞ্চ লুফ। এখানে মিলবে বড়দিনের স্পেশাল কেকের একাধিক সম্ভার। কেকের দাম ২০০ টাকা থেকে শুরু।</p>

ফ্রেঞ্চ লুফঃ অনবদ্য কেকের স্বাদ পেতে হলে একবার টেস্ট করে দেখতেই হবে দ্য ফ্রেঞ্চ লুফ। এখানে মিলবে বড়দিনের স্পেশাল কেকের একাধিক সম্ভার। কেকের দাম ২০০ টাকা থেকে শুরু।

<p>ক্যাথলিনঃ শহরের একাধিক জায়গায় অবস্থিত এই কেকের দোকান। দাম ৫০ টাকা থেকে শুরু। সারা বছরই এখানে পাওয়া যায় ফ্রুটকেক। বড়দিন উপলক্ষ্যে এরাও সেজে উঠল নয়া লুকে।&nbsp;</p>

ক্যাথলিনঃ শহরের একাধিক জায়গায় অবস্থিত এই কেকের দোকান। দাম ৫০ টাকা থেকে শুরু। সারা বছরই এখানে পাওয়া যায় ফ্রুটকেক। বড়দিন উপলক্ষ্যে এরাও সেজে উঠল নয়া লুকে। 

<p>মিয়া ওমোরেঃ সারা বছরই মিয়া ওমোরে-তে কেকের চাহিদা থাকে তুঙ্গে। প্রতিবছরই বড়দিন উপলক্ষ্যে বিশেষ ফ্রুট বানায় এই সংস্থা, প্রতিটি শাখার বাইরেই আলাদা স্টল করে বিক্রি করা হয় সেই কেক। দাম ২০০ টাকা থেকে শুরু।</p>

মিয়া ওমোরেঃ সারা বছরই মিয়া ওমোরে-তে কেকের চাহিদা থাকে তুঙ্গে। প্রতিবছরই বড়দিন উপলক্ষ্যে বিশেষ ফ্রুট বানায় এই সংস্থা, প্রতিটি শাখার বাইরেই আলাদা স্টল করে বিক্রি করা হয় সেই কেক। দাম ২০০ টাকা থেকে শুরু।

<p>ফ্লুরিজঃ পার্টস্ট্রিট এলাকার অন্যতম কেকের ঠিকানা ফ্লুরিজ। বড়দিনে কলকাতার প্রাণ কেন্দ্র পার্কস্ট্রিট আর সেখানেই কেকের খোঁজ মানে হাজির হওয়া ফ্লুরিজে। বড়দিন উপলক্ষে এখানে বানানো হয় বিশেষ কেক। খোলা থাকে রাত ১১টা পর্যন্ত। দাম ৭০ টাকা থেকে শুরু।</p>

ফ্লুরিজঃ পার্টস্ট্রিট এলাকার অন্যতম কেকের ঠিকানা ফ্লুরিজ। বড়দিনে কলকাতার প্রাণ কেন্দ্র পার্কস্ট্রিট আর সেখানেই কেকের খোঁজ মানে হাজির হওয়া ফ্লুরিজে। বড়দিন উপলক্ষে এখানে বানানো হয় বিশেষ কেক। খোলা থাকে রাত ১১টা পর্যন্ত। দাম ৭০ টাকা থেকে শুরু।

<p>কেকসঃ শহরের একাধিক জায়গায় অবস্থিত এই বেকারি। দাম সাধ্যের মধ্যে। অনবদ্য কেকের স্বাদ। ধর্মতলা চাদনি চত্বরে মিলবে এই কেক শপের দেখা। খোলা থাকে সকাল নটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত।&nbsp;</p>

কেকসঃ শহরের একাধিক জায়গায় অবস্থিত এই বেকারি। দাম সাধ্যের মধ্যে। অনবদ্য কেকের স্বাদ। ধর্মতলা চাদনি চত্বরে মিলবে এই কেক শপের দেখা। খোলা থাকে সকাল নটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত। 

<p>জাস্ট বেকডঃ জাস্ট বেকড শহরের এখন এক অতিপরিচিত নাম। বড়দিন উপলক্ষ্যে এরাও বাড়িয়ে তুলল নিজেদের কেকের সম্ভার। দাম ৭০ টাকা থেকে শুরু। দোখান খোলা থাকে সকাল ৮টা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত।</p>

জাস্ট বেকডঃ জাস্ট বেকড শহরের এখন এক অতিপরিচিত নাম। বড়দিন উপলক্ষ্যে এরাও বাড়িয়ে তুলল নিজেদের কেকের সম্ভার। দাম ৭০ টাকা থেকে শুরু। দোখান খোলা থাকে সকাল ৮টা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত।

Today's Poll

একসঙ্গে কতজন প্লেয়ারের সঙ্গে খেলতে পছন্দ করেন