Asianet News BanglaAsianet News Bangla

চুপ করে থাকলে অনেক রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়, জেনে নিন কিভাবে

আধ্যাত্মিকতায় নীরবতাকে স্বাস্থ্যের জন্য একটি খুব ভাল উপায় হিসাবেও বর্ণনা করা হয়েছে। বিজ্ঞান আরও বিশ্বাস করে যে নীরবতা স্বাস্থ্যের উপর শব্দের প্রভাব থেকে রক্ষা করতে খুব কার্যকর।
 

Silence can cure many diseases know what research says BDD
Author
First Published Aug 17, 2022, 2:57 PM IST

আজকাল আমাদের সারাদিনই কাজের মধ্য কাটে। আমাদের চারপাশের পরিবেশে এত বেশি শব্দ আছে যে কখন তা আমাদের রুটিনের অংশ হয়ে যায় আমরা বুঝতেও পারি না। যানবাহনের হর্ন হোক বা পাবলিক প্লেসে আওয়াজ। এমন পরিস্থিতিতে জীবনযাত্রায় দ্রুত পরিবর্তন আসছে। মানসিক শান্তি পাওয়া যায় না এবং নানা ধরনের রোগ আমাদের চারপাশে ঘিরে ফেলে। এটি এড়ানোর সবচেয়ে সহজ উপায় হল নীরবতা। আধ্যাত্মিকতায় নীরবতাকে স্বাস্থ্যের জন্য একটি খুব ভাল উপায় হিসাবেও বর্ণনা করা হয়েছে। বিজ্ঞান আরও বিশ্বাস করে যে নীরবতা স্বাস্থ্যের উপর শব্দের প্রভাব থেকে রক্ষা করতে খুব কার্যকর।
 
গবেষণা কি বলছে-
অনেক গবেষণা ও বিশেষজ্ঞদের মতে, কোলাহল থেকে আমরা যদি কিছু মুহূর্ত শান্তি খুঁজে পাই, তাহলে তা আমাদের স্বাস্থ্যের অনেক উপকার করতে পারে। শান্তি থাকলে শূন্যতার অবস্থা। মানে শব্দ নেই। কম বা কোন কণ্ঠস্বর আমাদের শরীর, মন এবং মেজাজের স্তরে দুর্দান্ত স্বস্তি দিতে পারে। এছাড়াও এর অনেক উপকারিতা রয়েছে...
 
নীরবতা উত্তেজনা দূর করে
আমাদের চারপাশে কোলাহলপূর্ণ পরিবেশ থাকলে মাঝে মাঝে আমরা উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থায় পৌঁছে যাই। এমন পরিস্থিতিতে আমরা যদি শান্তির জায়গায় যাই বা চুপচাপ থাকি, তাহলে তা মানসিক চাপের জন্য দায়ী হরমোন কর্টিসল কমিয়ে দেয়। নীরব থাকার ফলে আমাদের সৃজনশীলতাও বৃদ্ধি পায় এবং যে কোনও সমস্যার দ্রুত সমাধানও আমরা খুঁজে পাই। নীরবতা ভাল ঘুমের দিকে নিয়ে যায় এবং কোন মানসিক চাপ নেই।
 
নীরবতার মাধ্যমে উচ্চরক্তচাপ দূর হবে

কারও যদি উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা থাকে, তাহলে নীরবতা তার জন্য আশীর্বাদের চেয়ে কম নয়। ২০০৬ সালে পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে যদি একটি গান শোনার পর দুই মিনিটের বিরতি নেওয়া হয়, তাহলে পরবর্তী প্রশান্তি হৃদস্পন্দন এবং রক্তচাপ হ্রাস করে। গান যদি কম কণ্ঠে হয়, তবে সেই তুলনায় প্রশান্তি হৃদয়ের জন্য খুবই উপকারী।
 
নীরবতা একাগ্রতা বাড়ায়

বাড়িতে পরীক্ষার সময় বড়রা প্রায়ই বলতেন শান্তিতে পড়। এর অর্থ হল এমন জায়গায় পড়াশুনা করা উচিত যেখানে কোনও শব্দ নেই। এর কারণে আপনার একাগ্রতা বজায় ছিল। আমরা যদি শান্তিতে কাজ করি, তাহলে আমাদের মস্তিষ্ক দ্রুত কাজ করে এবং কাজটি আরও ভালোভাবে সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়। অতএব, নীরবতা বা শান্তি থাকা খুব উপকারী হতে পারে।
 
নীরবতা শক্তি সঞ্চয় করে
সারাদিনের ব্যস্ততার কারণে আমাদের মনে অসংখ্য চিন্তা ঘুরপাক খায়। অনেক সময় আমরা তাদের থামানোর চেষ্টা করি কিন্তু তারা নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে না। এমন পরিস্থিতিতে আমরা যদি নিরিবিলি পরিবেশে যাই, যেখানে কয়েক মুহূর্ত নীরব থাকার সময় থাকে। তাই এটি আমাদের শক্তি সঞ্চয় করে এই ধরনের চিন্তা বন্ধ করতে সাহায্য করে। নীরবতা আমাদের সব সময় বর্তমান থাকতে সাহায্য করে। 

আরও পড়ুন- কিডনিতে সমস্যা হলে শরীর অদ্ভুত কিছু ইঙ্গিত দেয়, সময় থাকতে জেনে নিন সেগুলো কী

আরও পড়ুন- পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে কাদের ক্যান্সারে আক্রান্তের সম্ভাবনা বেশি, জেনে নিন

আরও পড়ুন- সব সময় স্পাইসি খাবার খেতে ইচ্ছে করে, তবে জেনে নিন এর আসল কারণ

 
শান্তি এবং নীরবতা দ্বারা স্মৃতিশক্তি শক্তিশালী হয়
২০১৩ সালের একটি গবেষণায়, এটি পাওয়া গেছে যে কিছু ইঁদুরের মধ্যে দুই ঘন্টা নীরবতার পরে, তাদের হিপোক্যাম্পাসে নতুন কোষগুলি বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। এই কোষগুলি স্মৃতি এবং আবেগের সঙ্গে সম্পর্কিত। এই গবেষণায় বলা হয়েছে, চুপ থাকা আমাদের মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটায় এবং নানাভাবে উপকার করে। 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios