প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথমবার বেলুড় মঠে রাত্রিবাস করবেন নরেন্দ্র মোদী। দু' দিনের কলকাতা সফরে এসে এ দিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ বেলুড় মঠে পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী। জলপথে মিলেনিয়াম পার্ক থেকে বেলুড় পৌঁছন তিনি। রবিবার সকালে সেখানেই স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে ধ্যানেও বসার কথা প্রধানমন্ত্রীর। 

প্রথমে ঠিক ছিল, রাজ ভবনেই রাত্রিবাস করবেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু পরে ঠিক হয়, রাতে বেলুড় মঠেই থাকবেন নরেন্দ্র মোদী। সেই মতো মঠের আন্তর্জাতিক অতিথিশালার দোতলায় প্রধানমন্ত্রীর রাত্রিযাপনের বন্দোবস্ত করা হয়।

আরও পড়ুন- হাওড়া ব্রিজ-এ লাইট অ্যান্ড সাউন্ড, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী, দেখুন ভিডিও

আরও পড়ুন- ছাত্র বিক্ষোভে উত্তাল কলকাতা, ক্ষোভ সামাল দিতে ধর্মতলায় মমতা

এ দিন মিলেনিয়াম পার্ক থেকে জলপথে বেলুর মঠ পৌঁছনোর পর প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান মঠে সন্ন্যাসীরা। জেটি থেকে মূল মন্দিরে গিয়ে বেলুড় মঠের অধ্যক্ষ স্বামী শরণানন্দ মহারাজের সঙ্গে দেখা করে আশীর্বাদ নেন প্রধানমন্ত্রী। কথা বলেন অন্যান্য প্রবীণ সন্ন্যাসীদের সঙ্গেও। এর পরে বিশ্রাম নিতে নিজের ঘরে  চলে যান তিনি। রাতে মঠের ভোগ প্রসাদই তিনি খাবেন বলে জানা গিয়েছে। যার মধ্যে থাকে লুচি, ভাজা, বিভিন্ন ধরনের ফল এবং মিষ্টি। 

রবিবার সকালে বেলুড় মঠে মঙ্গল আরতি এবং প্রার্থনা সভায় অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি সন্ন্যাসীদের সঙ্গে ধ্যানেও বসার কথা তাঁর। রবিবারই স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন। স্বামীজির ঘরেও যাওয়ার কথা তাঁর। স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্যও রাখতে পারেন তিনি। 

বেলুড় মঠের সঙ্গে কয়েক দশকের সম্পর্ক প্রধানমন্ত্রীর। এর আগেও বেলুড় মঠে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘুরে গিয়েছেন তিনি। মঠের প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রয়াত আত্মস্থানন্দ মহারাজের কথাও এ দিন কলকাতা আসার আগে স্মরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ইংরেজি ও বাংলায় টুইট করে তিনি লেখেন, 'তবু একটা শূন্যতাও থাকবে। যিনি আমাকে 'জনসেবাই প্রভু সেবা'-র মহৎ নীতিটি শিখিয়েছিলেন, সেই শ্রদ্ধেয় স্বামী আত্মস্থানন্দজি এখন আর নেই। রামকৃষ্ণ মিশনে গিয়ে তাঁর পবিত্র সান্নিধ্য না পাওয়াটা অকল্পনীয়।'