মর্মান্তিক ও বিভৎস ঘটনার সাক্ষী থাকল হাওড়ার শিবপুর। সোফার উপর পড়ে রয়েছে মায়ের নিথর দেহ। পাশের ঘর পড়ে রয়েছে বাবার মৃতদেহ। রক্তাক্ত অবস্থায় ছেলেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। ছেলে উচ্চশিক্ষিত, কিন্তু কাজ না পাওয়ায় অবসাদগ্রস্ত অবস্থায় ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। সেই অবসাদ থেকে বাবা-মাকে খুন করেছে বলে প্রাথমিক তদন্ত জানতে পেরেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-'মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন তৃণমূলের কিছু লোক', দলের বিরুদ্ধেই ক্ষোভ প্রকাশ বিধায়কের

পুলিশ সূত্রে খবর, বুধবার শিবপুরের বন্ধ ফ্ল্য়াট থেকে দুর্গন্ধ পান স্থানীয় বাসিন্দারা। দরজা ধাক্কাধাক্কি করে না খোলায় পুলিশে খবর দেয়। শিবপুর থানার পুলিশ পৌঁছে ঘরের ভিতর থেকে বাবা-মায়ের পচাগলা দেহ উদ্ধার করে। তবে, কীভাবে খুন করা হয়েছে তা নিয়ে এখনও ধন্দে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, উচ্চশিক্ষিত বেকার ছেলে বাবা-মাকে খুন করে নিজে আত্মহত্য়ার চেষ্টা করে ছেলে। নিহতদের নাম বাবা প্রদ্যুৎ বোস ও মা গোপা বোস। ছেলে অভিজিৎকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-গায়ের রং কালো, গৃহবধূকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে

শিবপুরের কৈপুকুর লেনের বাসিন্দা প্রদ্যুৎ বোস ব্রিজ এন্ড রুফ কোম্পানির অবসরপ্রাপ্ত কর্মী। ছেলে এমসিএ পাশ করে সেভাবে কোনও কাজকর্ম করতেন না। বাড়িতে সেরকম রোজগার না থাকায় মাঝে মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত। লকডাউনের সময় আরও সঙ্কটে পরিবার। সেই কারণে মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন অভিজিৎ। সেই মানসিক অবসাদ থেকেই খুন বলে প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে পুলিশ।