সন্দীপ মজুমদার, হাওড়া: পুরভোটের আগে বাগনানকাণ্ডে অস্বস্তি বাড়ছে। এবার মূল অভিযুক্তের স্ত্রী তথা দলের স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যা রমা বেরাকেও বহিষ্কার করল তৃণমূল কংগ্রেস। শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলনে কথা এই সিদ্ধান্তের কথা জানান শাসদলের হাওড়া(গ্রামীণ) জেলা সভাপতি বিধায়ক পুলক রায়। এদিকে এদিন আবার বাগনানের খাদিনান মোড়ে জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন বিক্ষোভ দেখান বামেদের ছাত্র, মহিলা ও যুব সংগঠনের সদস্যরা।

আরও পড়ুন: নেশার টাকা দিতে রাজি হননি, ছেলের হাতে 'খুন' হয়ে গেলেন মহিলা

ঘটনার সূত্রপাত মঙ্গলবার রাতের। বাগনানের গোপালপুর গ্রামে শীতলাতলায় বাড়ির ছাদে বসে মোবাইলে গেম খেলছিলেন এক কলেজ ছাত্রী। তখন কুশ বেরা ও শোভন মণ্ডল নামে এলাকারই দুই যুবক তাঁর শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, চিৎকার শুনে যখন ছাদে উঠছিলেন, তখন অভিযুক্তেরা ওই তরুণীর মা-কে সিঁড়ি থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায়। গুরুতর আঘাত লাগে আক্রান্তের মাথায়। ওই মহিলাকে প্রথমে ভর্তি করা হয় বাগনান হাসপাতালে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রোগীকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় উলুবেড়িয়া হাসপাতালে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। নির্যাতিতার মা-কে মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসকরা। ঘটনার প্রতিবাদে দীর্ঘক্ষণ মুম্বই রোড অবরোধ করে তুমুল বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বাসিন্দা ও বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। অবরোধ শামিল হলেন বিজেপি দুই সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় ও সৌমিত্র খাঁ। 

আরও পড়ুন: ট্রাক্টরের ফলায় ছিন্নভিন্ন দেহ, চাষের জমিতে মর্মান্তিক মৃত্যু কৃষকের

গ্রেফতার হওয়ার পরেই মূল অভিযুক্ত কুশ বেরাকে বহিষ্কার করে তৃণমূল। এবার সরিয়ে দেওয়া হলে তার স্ত্রী ও স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য রমার বেরাকেও।  তৃণমূলের হাওড়া(গ্রামীণ) জেলা সভাপতি পুলক রায় বলেন, যেকোনও মৃত্যুই দুঃখজনক। কিন্তু যাঁরা এই মৃত্যুর ঘটনাকে নিয়ে এলাকায় অশান্তি পাকাতে চাইছেন, তাঁদের সমর্থন করা যায় না। এদিকে বাগনানকাণ্ডে দোষীদের ফাঁসির দাবিতে শুক্রবার খাদিনান মোড়ে অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান বামদের মহিলা, যুব ও ছাত্র সংগঠন। বিক্ষোভ চলে বাগনান থানার সামনেও।