Asianet News BanglaAsianet News Bangla

নেতাজির দেহাবশেষ ফিরিয়ে এনে ডিএনএ পরীক্ষা করা হোক, স্বাধীনতা দিবসে আবেগঘন আর্জি মেয়ের

জার্মানিতে বসবাসকারী অস্ট্রিয়ান বংশোদ্ভূত অর্থনীতিবিদ বলেছেন যে ডিএনএ পরীক্ষায় বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে।  টোকিওর রেনকোজি মন্দিরে এখনও সংরক্ষিত দেহাবশেষ নেতাজির এবং জাপানের অধীনে রয়েছে 

Netajis daughter says his remains should be brought back to India for dna test bsm
Author
Kolkata, First Published Aug 15, 2022, 2:46 PM IST

 নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর কন্যা অনিতা বসু পাফ বলেছেন যে নেতাজির দেহাবশেষ ভারতে ফিরিয়ে আনার সময় এসেছে। পাশাপাশি তিনি  পরামর্শ দিয়েছেন যে ডিএনএ পরীক্ষা করারও। এরই সাহায্যে ১৯৪৫ সালের  ১৮ আগস্ট মহান স্বাধীনতা সংগ্রামীর মৃত্যু হয়েছে কিনা তা যেমন জানা যাবে তেমনই নেতাজির মৃত্যু নিয়ে যারা এখনও সন্দেহ প্রকাশ করেন তাদেরও প্রশ্নের উত্তর দেওয়া যাবে। 

  জার্মানিতে বসবাসকারী অস্ট্রিয়ান বংশোদ্ভূত অর্থনীতিবিদ বলেছেন যে ডিএনএ পরীক্ষায় বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে।  টোকিওর রেনকোজি মন্দিরে এখনও সংরক্ষিত দেহাবশেষ নেতাজির এবং জাপানের অধীনে রয়েছে। 

এক বিবৃতিতে, নেতাজির একমাত্র সন্তান, পাফ বলেছেন, যেহেতু তার বাবা স্বাধীনতার আনন্দ উপভোগ করার জন্য বেঁচে ছিলেন না, তাই সময় এসেছে অন্তত তার দেহাবশেষ ভারতের মাটিতে ফিরে আসতে পারে। "আধুনিক প্রযুক্তি এখন অত্যাধুনিক ডিএনএ পরীক্ষার ব্যবহার করে, যদি দেহাবশেষ থেকে ডিএনএ বের করা যায়। যারা এখনও সন্দেহ করে যে নেতাজি ১৯৪৫ সালে ১৮ অগাস্ট নেতাজি মারা গিয়েছিলেন, তাদের জন্য এটি বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়ার সুযোগ দেয়। "  যে দেহাবশেষগুলি রেনকোজি মন্দিরে রাখা আছে সেটিরও ডিএনএ পরীক্ষা করার আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

"রেনকোজি মন্দিরের পুরোহিত এবং জাপান সরকার এই ধরনের একটি পরীক্ষায় সম্মত হয়েছিল, যেমনটি নেতাজির মৃত্যুতে (বিচারপতি মুখার্জি কমিশন অফ ইনকোয়ারি) সর্বশেষ সরকারি ভারতীয় তদন্তের নথিগুলি উল্লেখ করেছে।"

"তাই আসুন আমরা অবশেষে তাকে দেশে আনার জন্য প্রস্তুত হই! নেতাজির কাছে তার দেশের স্বাধীনতার চেয়ে তার জীবনে আর কিছুই গুরুত্বপূর্ণ ছিল না। বিদেশী শাসনমুক্ত ভারতে বসবাসের চেয়ে বেশি আর কিছুই তিনি জীবনে চাননি। যেহেতু তিনি স্বাধীনতা আনন্দ উপভোগ করতে পারেননি, স্বাধীনতার অনুভূতি উপলব্ধি করতে পারেননি , তাই এটাই সময় যে অন্তত তার দেহাবশেষ এবার ভারতের মাটিতে ফিরিয়ে নিয়ে আসার।” রীতিমত আবেগঘন হয়ে বলেছেন অনিতা পাফ। তেমনই জানিয়েছেন সংবাদ সংস্থা পিটিআই। 

নেতাজির মৃত্যু এখনও রহস্যে ঘেরা। অনেকেই বিশ্বাস করেন  তিনি  তাইওয়ানে একটি বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান। অনেকে আবার এই তত্ত্ব বিশ্বাস করেন না। যখন তদন্তের দুটি কমিশন এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিল যে নেতাজি ১৮ আগস্ট, ১৯৪৫ সালে তাইপেইতে একটি বিমান দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিলেন, তখন বিচারপতি এম কে মুখার্জির নেতৃত্বে তৃতীয় তদন্ত প্যানেল এটিকে চ্যালেঞ্জ  করেছিল । পাশাপাশি দাবি করেছিল যে সুভাষচন্দ্র বসু বিমান দুর্ঘটনার পরেও বেঁচে ছিলেন।

অনিতা পাফ বলেছেন, "নেতাজির একমাত্র সন্তান হিসাবে আমি নিশ্চিত  যে তার প্রিয়তম ইচ্ছে বা শেষ ইচ্ছে, স্বাধীনত দেশে বা স্বাধীন ভারতে ফিরে আসা।তাই তাঁর দেহাবশেষ যদি জাপান থেকে ফিরিয়ে নিয়ে আসা হয় তাহলে তাঁর  শেষ পর্যন্ত একপ্রকার পূর্ণ হবে এবং তাকে সম্মান জানানোর জন্য যথাযথ অনুষ্ঠানগুলি সম্পন্ন করা হবে" ।

পাফ তার বিবৃতিতে বলেছেন  যে ভারত ঔপনিবেশিক শাসনের শৃঙ্খল ছুঁড়ে ফেলতে সক্ষম হওয়ার ৭৫ বছর পরে, স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম প্রধান "নায়ক" বসু, কিন্তু এখনও পর্যন্ত তিনি তাঁর মাতৃভূমিতে ফিরে আসেননি।
"তার দেশবাসী এবং দেশবাসী তাকে তার উত্সর্গ এবং তার আত্মত্যাগের জন্য ধন্যবাদ জানায়। তারা তাঁদের প্রিয় নেতার  জন্য অসংখ্য শারীরিক এবং আধ্যাত্মিক স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি করেছে, এইভাবে তার স্মৃতি আজও বেঁচে আছে। দেশের মানুষের প্রশংসায়, কৃতজ্ঞতায় এবং ভালবাসায় এখনও তিনি তাঁদের প্রিয় নেতাজি," বলেছিলেন অনিতা পাফ। তিনি বলেছেন,  "আরেকটি আকর্ষণীয় স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি করা হয়েছে এবং ১৫ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নতুন দিল্লিতে একটি খুব বিশিষ্ট স্থানে উন্মোচন করছেন"।

পাফ বলেন, ভারতে কিছু পুরুষ ও মহিলা, নেতাজির প্রতি তাদের প্রশংসা এবং ভালোবাসায় অনুপ্রাণিত হয়ে, শুধু তাকেই স্মরণ করে না বরং আশা করে যে তিনি ১৯৪৫ সালের ১৮ অগাস্ট বিমান দুর্ঘটনায় মারা যাননি। "কিন্তু আজ আমরা ১৯৪৫ এবং ১৯৪৬ সালের যে সব তথ্য পেয়েছে সেগুলি প্রমাণ দেয়  যে নেতাজি সেইদিন বিদেশে মারা গিয়েছিলেন। জাপান টোকিওর রেনকোজি মন্দিরে তাঁর দেহাবশেষের জন্য একটি 'অস্থায়ী' বাড়ি দিয়েছে, ভক্তিভরে যত্ন নেওয়া হয়েছে। তিন প্রজন্মের পুরোহিতদের দ্বারা, এবং জাপানি জনগণের দ্বারা সম্মতিতে।” 

পাফ  আরও বলেছিলেন যে "সমস্ত ভারতীয়, পাকিস্তানি এবং বাংলাদেশী, যারা এখন স্বাধীনতায় পালন করতে পারে, তারা নেতাজির পরিবারের সদস্য! আমি আপনাদের সকলকে আমার ভাই ও বোন হিসাবে অভিনন্দন জানাই! এবং আমি নেতাজিকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য আমার প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার জন্য আপনাকে আমন্ত্রণ জানাই!"

দুর্নীতি ও পরিবারতন্ত্র বড় চ্যালেঞ্জ ভারতের সামনে, লালকেল্লা থেকে লড়াইয়ের ময়দানে নামার বার্তা মোদীর

পৃথিবীর ৩০ কিলোমিটার ওপরে পতপত করে ভারতের উড়ছে জাতীয় পাতাকা, দেখুন সেই সুন্দর ভিডিও

'জয় অনুসন্ধান'- স্বাধীনতা দিবসে নতুন স্লোগান মোদীর, টেলিপ্রিন্টার ছাড়াই দীর্ঘ ভাষণ লালকেল্লায়

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios