শনিবার মহারাষ্ট্রের শিরপুরে ঘটে গিয়েছে এক ভয়াবহ দুর্ঘটনা। ওয়াগাডি গ্রামের একটি রাসায়নিক কারখানায় ঘটে গিয়েছে বিস্ফোরণ। আর এই বিস্ফোরণের জেরে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ২০ জন, আহত হয়েছেন প্রায় ৫০ জন। সূত্রের খবর,  আনুমানিক প্রায় ৭০ জন এখনও ওই কারখানার ভিতর আটকে রয়েছেন বলে খবর। 

খবর পেয়ে ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে গিয়ে উপস্থিত হয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা পর্ষদ। প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে যে, শিরপুরের মহারাষ্ট্র ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট -এর কম্পাউন্ডের ভিতরে রাসায়নিক কারাখানায় আগুন লাগে বলে জানা গিয়েছে। বিস্ফোরণের শব্দ এতটাই তীব্র ছিল যে আশেপাশের গ্রামের মানুষও সেই আওয়াজ স্পষ্ট শুনতে পেয়েছিলেন। দুর্ঘটনার পরেই সেখানে পৌঁছোয় দমকলের ছটি ইঞ্জিন। 

স্ত্রীর নাম থাকবে কি এনআরসি তালিকায়, আতঙ্কে আত্মঘাতী স্বামী

আরও পড়ুন- এইচআইভি আক্রান্ত হওয়ার খবরে প্রাণ গেল এক মহিলার, তদন্তে উঠে এল রিপোর্ট ভুয়ো

আজ এনআরসি তালিকা প্রকাশ,অসমে জারি কড়া সতর্কতা, কী আছে রাজ্যবাসীর ভাগ্যে

ঘটনার জেরে কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায় গোটা এলাকা। আশঙ্কা করা হচ্ছে ওই কালো ধোঁয়া এতটাই ক্ষতিকর যে, তার জেরে স্থানীয় বাসিন্দাদের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। সূত্রের খবর, দুর্ঘটনার সময়ে প্রায় ১০০ জন শ্রমিক সেই সময়ে ওই রাসায়নিক কারখানায় উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। 

রাসায়নিক বিশেষজ্ঞ এবং চিকিৎসকরাও সেই ঘটনাস্থলে ইতিমধ্যেই গিয়ে উপস্থিত হয়েছেন। তবে কীভাবে এবং কেন এই রাসায়নিক কারখানায় এমন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটল এবং এই ধরণের রাসায়নিক কারখানায়, কেন কোনও সুরক্ষা বিষয়ক ব্যবস্থা করা হয়নি, বা করা হলেও তা কেন কাজ করেনি সেই বিষয়ে উঠছে প্রশ্ন।