২০১২ সালের ডিসেম্বরে দিল্লির চলন্ড বাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন এক তরুণী। এই ঘটনা প্রচণ্ডভাবে আলোড়ন তুলেছিল সারা দেশে। এই নারকীয় ঘটনার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছিল গোটা ভারত। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়ার পর অবশেষে চলতি বছর ফাঁসি হয়েছে নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত চার ব্যক্তির। তারপরেও মেয়েদের উপর ধর্ষণের মত  নির্যাতনের ঘটনা যে কমেনি তাই যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়ে গেল নয়ডার গণধর্ষণের ঘটনা। এবার চলন্ত বাসে গণধর্ষণের শিকার হলেন ২৫ বছরের এক যুবতী।

আরও পড়ুন: ফের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ভেঙে দিল পুরনো রেকর্ড, লকডাউন আর নয় ইজ্ঞিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

জানা যাচ্ছে নিজের দুই সন্তানকে নিয়ে প্রতাপগড় থেকে নয়ডাগামী বাসটিতে উঠেছিলেন। বুধবার ভোররাতে বাসের দুই চালক তাঁকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। সেই সময় বাসটিতে আরও ১২ জন যাত্রী ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন।

আরও পড়ুন: গালওয়ানকে এখনও নিজের অংশ দাবি চিনের, মধ্যরাতেই কড়া জবাব দিল ভারত

পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, লখনউ থেকে মথুরা যাওয়ার পথে এই ঘটনা ঘটে। এসি স্লিপার বাসটিতে করে স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে নয়ডায় যাচ্ছিলেন বছর পঁচিশের ওই তরুণী। বাসটি চালাচ্ছিল রতন নামের এক চালক। ডেপুটি পুলিশ কমিশনার বিন্দ্রা শুক্লা জানান, "আমরা জানতে পেরেছি নয়ডা যাওয়ার পথে চলন্ত বাসে ওই মহিলা নির্যাতনের শিকার হন। তরুণী অভিযোগ করেছেন, বাসটির চালক যখন তাকে ধর্ষণ করে তখন অপর চালক স্টিয়ারিং ধরে ছিল। বাসের কন্ডাকটারও বিষয়টি জানত। বাসটিতে সেই সময় ১২-১৩ জন যাত্রী ছিল। এই ঘটনায় ইতিমধ্যে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি  ২ জনের খোঁজ চলছে।"

 

পুরো বিষয়টি মহিলা ফোন করে তাঁর স্বামীকে জানান। এরপর নয়ডার সেক্টর ৬২-তে সকালে বাসটি পৌঁছলে সেখানে নিজের এক বন্ধুকে নিয়ে হাজির হন তরুণীর স্বামী।তবে তার আগেই সেখান থেকে চম্পট দেয় প্রধান অভিযুক্ত। এই ঘটনায় ইতিমধ্যে অপর চালককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

নয়ডায় বাসে গণধর্ষণের ঘটনা! প্রতাপগড় থেকে গৌতমবুদ্ধ নগর পর্যন্ত একটি চলন্ত বাসে এক মহিলাকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ৷ বুধবার এই ঘটনাটি ঘটে৷ ইতিমধ্যেই এই গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ৷