শুক্রবার ছিল দেশের পঞ্চায়েতীরাজ দিবস। এই বিশেষ দিনে দেশের সমস্ত পঞ্চায়েত প্রধানের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে আলোচনা করবেন বলে আগেই ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই মতো বেলা এগারোটা বাজতেই  মুখে গামছা দিয়ে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দেশের গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরও। ভিডিও কনফারেন্সে দেশের প্রতিটি পঞ্চায়েত প্রধানের বক্তব্য এদিন মন দিয়ে শোনেন মোদী। পঞ্চায়েত দিবসে চালু করেন দুটি নতুন প্রকল্প। পঞ্চায়েতের কাজ সহজ করতে ই-গ্রাম স্বরাজ নামের একটি অ্যাপের উদ্বোধন করেন তিনি।

 

 

দেশে  করোনা সংক্রমণ মোকাবিলা করতে চলছে লকডাউন। বন্ধ রয়েছে শিল্পক্ষেত্র। যদিও ২০ এপ্রিলের পর কৃষি ও কুটির শিল্পে ছাড় ঘোষণা করেছে সরকার। আর দেশের পঞ্চায়ের কাজে গতি আনতে এবার স্বয়ং ময়দানে নামলেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা সতর্কতার কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোভিড ১৯ মোকাবিলায় সবচেয়ে বেশি দরকার সামাজিক দূরত্ব। তার পাঠ আমাদের আগে থেকেই দিয়েছে দেশের গ্রামের মানুষ। কারণ ফসল 'দো গজ দুরির' নিয়ম মেনেই ফসল ফলান কৃষকরা।  

 

 

পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই আমাদের সাবলম্বী হতে শিখিয়েছে। করোনা সংকট দেশের মানুষ একসঙ্গে মিলেই লড়াই করতে হবে। করোনা আমাদের অনেক শিক্ষা দিয়েছে।

করোনা যুদ্ধ জিতে নজির গড়ে বাড়ি ফিরলেন ৯২ বছরের বৃদ্ধা, হেরে গেল ৪ মাসের ছোট্ট শিশু

ফের নজির গড়ল উত্তর-পূর্ব ভারত, এবার করোনা ফ্রি রাজ্য হল ত্রিপুরা

তৃতীয় বিশ্বের চেয়েও খারাপ পরিণতির পথে আমেরিকা, রেকর্ড গড়ে একদিনে মৃত্যু ৩ হাজার ছাড়াল

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা মহামারী আমাদের সামনে নতুন বাধা তৈরি করছে। এই মহামারী আমাদের নতুন করে শিক্ষা দিচ্ছে। করোনা-সঙ্কট আমাদের স্বনির্ভর হতে শিখিয়েছে। স্বনির্ভর না হলে এই বাধার মোকাবিলা করা যাবে না। এমন সঙ্কট ফের এলে আমাদের যেন বিদেশের দিকে তাকাতে না হয়।’

 

বৈঠকে গ্রামীণ রাস্তা নির্মান, ১০০ দিনের কাজ, মহিলাদের স্বনিযুক্তি প্রকল্প এবং প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা নিয়েও আলোচনা হয়। এই চার বিষয়ের কাজে জোর দিতে চায় কেন্দ্র। 

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান ও গ্রামবাসীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা, ‘সামাজিক দূরত্ব মানুন। নিজেকে নিরাপদ রাখুন। ভারতের করোনা মোকাবিলা আজ বিশ্বে চর্চার বিষয়।’

 

গ্রামে সম্পত্তি বিবাদ কমাতে নতুন ব্যবস্থার কথা শুক্রবার ঘোষণা করলেন মোদি। জিপিএস ম্যাপিংয়ে এবার থেকে থাকবে সম্পত্তির খতিয়ান। সেই খতিয়ান থেকে সম্পত্তির মালিকানা নির্ধারণ করা হবে। মোদি বলেছেন, ‘গ্রামে সবার সম্পত্তি ম্যাপিং করা হবে ড্রোনের সাহায্যে। সম্পত্তি বিবাদ মেটাতে কাজ দেবে এই পরিকল্পনা। নতুন এই যোজনার নাম স্বামীত্ব যোজনা।’