ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে এর আগেও বহুবার উদ্বেগ প্রকাশ করেছে অর্থনৈতিক মহল। আর এবার ভারতের আর্তিক বৃদ্ধি নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করল ইন্টারন্যাশনাল মানিটারি ফান্ড অর্থাত আইএমএফ। 

এদিন অর্থনৈতিক দুর্বলতার কারণ হিসাবে কর্পোরেট এবং পরিবেশ নিয়ন্ত্রণকারী অনিশ্চয়তার পাশাপাশি কিছু ব্যাঙ্ক বহির্ভুত আর্থিক সংস্থার দুর্বলতাকেও দায়ি করেছে আইএমএফ। এই বিষয়গুলিই ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হারতে প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে বলে মনে করছেন  ইন্টারন্যাশনাল মানিটারি ফান্ডের মুখপাত্র গেরি রাইস। 

প্রসঙ্গত গত এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যে আর্থিক বৃদ্ধির হার নেমে এসেছে পাঁচ শতাংশে, যা গত সাত বছরে সবচেয়ে কম। আইএমএফ-এর মুখপাত্রের তরফে তাই জানানো হয়েছে যে, ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হার যতটা আশা করা হয়েছিল তার থেকে অনেকটাই দুর্বল। 

'এ তো ট্রেলার ছিল, সিনেমা এখনও বাকি আছে', সরকারের ১০০ দিনে মোদী উবাচ

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক সংযুক্তিকরণের প্রতিবাদের জের, পুজোর মুখেই ধর্মঘটের ডাক

উৎসবের মেজাজে বিষাদের সুর, গণেশ বিসর্জনে নৌকোডুবিতে মৃত ১১

এই দুই রাজ্যে দিয়ে চলবে দেশের প্রথম বুলেট ট্রেন, জানেন কি মাথাপিছু ভাড়া কত

প্রসঙ্গত, জুলাই মাসে ইন্টারন্যাশনাল মানিটারি ফান্ডের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ভারতের অর্থনৈতিক উন্নতি অনেকটাই ধীর গতি সম্পন্ন। এই অর্থবর্ষে ০.০৩ শতাংশ হারে এই বৃদ্ধির হার হয়েছে। যার ফলস্বরূপ জিডিপির হার ঘোরাফেরা করবে ৭ থেকে ৭.২ শতাংশের মধ্যে।যদিও ওয়াশিংটনভিত্তিক একটি আন্তর্জাতিতক অর্থ সংস্থা জানিয়েছিল, ভারত এখনও ক্রমবর্ধনশীল অর্থনীতি, যা চিন থেকে অনেকটাই এগিয়ে থাকবে।